Printed on Tue Apr 13 2021 7:39:46 PM

চুয়াডাঙ্গায় আইনজীবী ও আদালত কর্মকর্তাদের সংঘর্ষ, জজের প্রত্যাহার দাবি

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি
সারাদেশ
আইনজীবী
আইনজীবী
চুয়াডাঙ্গায় আইনজীবী ও আদালত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। ১৮ বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে জেলা ও দায়রা জজ (ভারপ্রাপ্ত) আদালতের বিচারকের খাস কমরায় এ অপ্রতীকর ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনার পর দুই পক্ষই পাল্টাপাল্টি হামলার অভিযোগ করেছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে আদালত প্রাঙ্গণে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

আইনজীবীদের পক্ষ থেকে জরুরী সাধারণ সভা ডেকে অনিদিষ্টকালের জন্যে সব আদালত বর্জনের ঘোষণা দেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে হামলাকারীদের গ্রেফতার ও ভারপ্রাপ্ত জেলা ও দায়রা জজ বজলুর রহমানের প্রত্যাহার দাবি করা হয়েছে।

অন্যদিকে আদালতের কর্মকর্তা কর্মচারীদের পক্ষ থেকেও আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে।

জানা গেছে, আদালতের এক কর্মচারীর (নাজির) বদলির বিষয় নিয়ে বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ (ভারপ্রাপ্ত) বজলুর রহমানের খাস কামরায় যায় আইনজীবী সমতিরি সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ নির্বাহী কমিটির ১৫ জন সদস্য। এসময় আইনজীবীদের সঙ্গে বিচারকের মত পার্থক্য তৈরি হলে সেখানে উত্তপ্ত পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।

এসময় আদালতের অন্য কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বিচারকের কার্যালয়ে পৌছালে পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়ে যায়।  সেখানে আইনজীবীদের উপর হামলা চালানো হয় বলে অভিযোগ বার সদস্যদের। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

আইনজীবী

এর কিছুক্ষণ পরই এক আইনজীবীর সহকারীকে আটকের খবরে আবারও উত্তপ্ত হয় আদালত প্রাঙ্গণ। আইনজীবীরা লাঠি নিয়ে পুলিশের উপর চড়াও হলে আদালত প্রাঙ্গনে আতঙ্ক ও উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। ঘটনাস্থলে পুলিশের ঊর্দ্ধতন কর্মকর্তারা ছুঁটে এসে পরিস্থিতি শান্ত করেন।

এ ঘটনার পর জেলা আইনজীবী সমিতির এক জরুরী সভায় জেলা ও দায়রা জজ আদালতের ভারপ্রাপ্ত বিচারক বজলুর রহমানের প্রত্যাহার দাবি করেন। একই সঙ্গে আদালতের দুই নাজির জহুরুল ইসলাম ও মাসুদুর রহমানসহ হামলাকারীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন। এ দুটি দাবি আদায়ে আইনজীবীরা অনিদিষ্টকালের জন্যে আদালত বর্জনের ঘোষণা দিয়েছে।

জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি আলগীর হোসেন জরুরী সভায় বলেন, সাবেক জেলা ও দায়রা জজ মো: রেজা আলমগীর হাসান গত ১৫ মার্চ আদালতের নাজির মাসুদুর রহমানকে প্রত্যাহার করে ওই পদে নুরুল ইসলামকে নিয়োগ দেন। কিন্তু তার নিয়োগের পরও মাসুদুর রহমানসহ তার সহযোগীরা নুরুল ইসলামকে যোগদানে নানাভাবে বাঁধা প্রদান করছেন। বিষয়টির সুষ্ঠু সমাধানের জন্য বিচারকের কাছে গেলে সেখানে আদালতের কর্মকর্তা কর্মচারীরা লাঠিসোটা নিয়ে হামলা চালায়। এতে দুই আইনজীবী আহতও হয়েছে।

অপরদিকে চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের নাজির ওসমান গণি সাংবাদিকদের বলেন, কর্মচারীর বদলির বিষয় নিয়ে আইনজীবীরা বিচারকের কার্যালয়ে গিয়ে ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ করে। এসময় তারা বিচারকের টেবিলে ভাঙচুর চালায়।’ আমরা প্রতিবাদ করায় আামাদের উপরই হামলা করে তারা। বিষয়টি উচ্চ আদালতে জানানো হয়েছে, হামলাকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।

চুয়াডাঙ্গা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ আবু জিহাদ ফকরুল আলম খান জানান, আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে আইনজীবীদের একটি অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে। খবর পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। উভয় পক্ষের অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ কাজ করছে।

আরও পড়ুন : চুয়াডাঙ্গায় দুই ইউপিতে নৌকার প্রার্থী জয়ী





ভয়েস টিভি/এমএইচ
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/39019
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2021 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ