Printed on Sun May 09 2021 5:34:02 AM

ভাগাড় খুঁড়ে মিলল ২ হাজার বছরের পুরোনো রাজকীয় কবরস্থান

অনলাইন ডেস্ক
বিশ্ব
কবরস্থান
কবরস্থান
মিশরের বন্দর শহর বেরেনিস। লোহিত সাগরের তীরে অবস্থিত এই শহরের তলায় লুকিয়ে ছিল ২ হাজার বছরের পুরোনো এক কবরস্থান। শহরের ময়লার ভাগাড় খুঁড়ে সম্প্রতি কবরস্থনটির সন্ধান পান প্রত্নতাত্ত্বিকরা। মিশরের সেই সময়কার মরদেহগুলো মমি করা হলেও নতুন সন্ধান পাওয়া এ গোরস্থানের মরদেহগুলো ছিল কাপড় বা কম্বলে মোড়ানো। তবে এই কাপড় বা কম্বলের মধ্যেও একটি রাজকীয় ব্যাপার ছিল। সেই সময়কার মৃতদেহ মমি না করাও একটি নতুন বিস্ময়। তবে এ কবরস্থানটি মানুষের নয় বরং সেসময়কার ধনশালী এবং রাজাদের পোষ্য প্রাণীদের।

সম্প্রতি পোষ্য প্রাণীদের এই কবরস্থানের সন্ধান মিলেছে মিশরের বেরেনিস শহরের তলায়। মাটি খুঁড়ে যার খোঁজ দিয়েছেন প্রত্নতত্ত্ববিদ মার্টা অসিপিন্সকা এবং তার সহযোগীরা। এটি বিশ্বের সবচেয়ে পুরনো পোষা প্রাণীদের কবরস্থান কি না তা নিয়ে গবেষণা চলছে।

সেখানে সব মিলিয়ে প্রায় ৫৮৫টি প্রাণীর কবরের সন্ধান পেয়েছেন তারা। তাদের এই আবিষ্কার ওয়ার্ল্ড আর্কিওলজি নামে একটি জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।

কবরস্থান

২০১১ সালে অসিপিন্সকা এবং তার দলবল প্রথম এই কবরস্থান খুঁজে পান। মিশরের শহর বেরেনিসের একটি আবর্জনা ফেলার জায়গার নীচে মাটি খুঁড়ে বের হয় কবরস্থানটি। ২০০১ থেকে খনন শুরু করলেও প্রথম প্রাণীর কঙ্কালের সন্ধান পান ২০১৬ সালে। ওই বছর তারা শ খানেক কঙ্কাল খুঁড়ে বার করেন এবং সেগুলির পরীক্ষা করেন। কিন্তু তখনও তারা জানতেন না এটি পোষ্যদের কবরস্থান ছিল না কি ভাগাড়ের মতো কিছু ছিল।

অনেক গবেষণার পর, সমস্ত প্রাণীদের দাঁত, হাড়ের টুকরো ইত্যাদি পর্যবেক্ষণের পর তারা এটি কবরস্থান বলে নিশ্চিত করেন। যেখানে বিড়াল, কুকুরের পাশাপাশি বাঁদরের হাড়ও পেয়েছেন তারা। সেই বাঁদর আবার ভারত থেকে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল সে দেশে। যে কটি বাঁদরের হাড় উদ্ধার করা গেছে তার পরীক্ষা করে গবেষকরা জানতে পেরেছেন, প্রত্যেকটি বাঁদরই খুব কম বয়সে মারা গেছে।

কবরস্থান

সম্ভবত ভারতের আবহাওয়ায় জন্ম হওয়া ওই বাঁদরগুলি সুদূর মিশরের জলবায়ুর সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারেনি। সে কারণেই তাদের মৃত্যু হয়েছে।

কবরস্থানের ৯০ শতাংশ কবরই বিড়ালের, ৫ শতাংশ কুকুরের। বাকি ৫ শতাংশের মধ্যে বিভিন্ন প্রাণী রয়েছে।

প্রতিটি প্রাণীর কবরেই রাজকীয়তা লক্ষ্য করা গেছে। কোনো প্রাণীকে উলের গরম জামা জড়িয়ে কবর দেয়া হয়েছিল। কোনো প্রাণীর গলায় সুন্দর কারুকার্য করা বেল্ট পরানো ছিল। গবেষকদের আশ্চর্য করে তুলেছিল একটিই বিষয়। মিশর জুড়ে সাধারণত মমি করে মৃতদেহ সংরক্ষণের যে প্রচলন ছিল এ ক্ষেত্রে তা দেখা যায়নি।

আরও পড়ুন: মিশরে ৫ হাজার বছরের পুরোনো বিয়ার কারখানা!

ভয়েস টিভি/এসএফ
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/39545
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2021 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ