Printed on Sun Jan 17 2021 5:57:44 PM

চাষাবাদে ঝুঁকেছে কুড়িগ্রামের নারীরা

মমিনুল ইসলাম বাবু, কুড়িগ্রাম
সারাদেশ
চাষাবাদে
চাষাবাদে
পাঁচ দফা বন্যায় ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে কুড়িগ্রামের কৃষি পরিবারগুলো। জীবিকা নির্বাহের তাগিদে পুরুষরা অন্য জেলায় বেড়িয়ে পড়ছে কাজের সন্ধানে। বসে নেই নারীরা, ঝুঁকেছে চাষাবাদে। অভাবী সংসারের চাহিদা মেটাতে গৃহিনীরা হয়ে উঠেছে কৃষাণী।

বুধবার সরেজমিনে কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার হলোখানা ইউনিয়নের সুভারকুটি গ্রামে ঘুরে দেখা গেছে নারী কৃষাণীদের কর্মযজ্ঞ। পাঁচদফা বন্যায় নষ্ট হয়ে যাওয়া ধান ক্ষেতে কেউ লাগিয়েছে শষা, কেউ শিম, কেউ কুল বরই, পেঁপেসহ নানান সবজি।

সেপ্টেম্বরে বন্যার পানি নেমে যাওয়ার পর ২৫ শতক জমিতে শশা লাগিয়েছিলেন কৃষাণি মেঘনা বেগম। তিন মাসে শষা বিক্রির যোগ্য হয়ে গেছে। ৩০ ডিসেম্বর বুধবার দুই হাজার ৮০০ টাকার শষা বিক্রি করলেন তিনি। এই সবজি চাষে তার খরচ হয়েছে প্রায় ৮০ হাজার টাকা। তিনি আশা করছেন এক লাখ ২০ হাজার টাকার শষা বিক্রি করতে পারবেন।

প্রতিবেশী আমিনা বেগম জানালেন, বন্যায় স্বামীর বসত ভিটা যাওয়ায় বাবার বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন। বিভিন্নভাবে ঋণ করে বাবার ৬০ শতক জমিতে আপেল কুল, পেঁপে, মরিচ ও বেগুন লাগিয়েছেন। এতে খরচ হয়েছে প্রায় ৬০ হাজার টাকা। স্বামীর ৩০ শতক জমিও বন্ধক রাখতে হয়েছে তাদেরকে।

চাষাবাদে

এবার ধান চাষ করে অনেক টাকা লোকসান গুণতে হয়েছে তাকে। ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে এবার বিকল্প চাষবাস করে নিজের মাথা গোঁজার জন্য জমি কেনার স্বপ্ন দেখছে সে।

এদিকে এই সংকটে পাশে এসে দাঁড়িয়েছে বেসরকারি সংস্থা আরডিআরএস বাংলাদেশ। নারী কৃষাণীদের সহযোগিতায় তারা ১৩ হাজার নারীকে প্রশিক্ষণসহ ২-১২ হাজার টাকা পর্যন্ত কৃষি ঋণ দিচ্ছে তারা। এর সাথে অন্যান্য ঋণ করে ভাগ্য বদলাতে চাচ্ছে কৃষাণীরা।

হলোখানা ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার গোলজার হোসেন জানান, দিনকাল বদলে গেছে। বাড়ির বউ-ঝিরা এখন শুধু ঘরের কাজ নয; স্বামীর সঙ্গে কৃষিকাজেও হাত লাগাচ্ছে। পুরুষবা জমি তৈরি করে অন্য জেলায় চলে যান কাজের আশায়। আর বউ-ঝিরা কোমড় বেঁধে লেগে পরেন চাষাবাদে।

আরডিআরএস’র প্রকল্প সমন্বয়কারী তপন কুমার সাহা জানান, আর্থিক অন্তর্ভূক্তি ও উন্নতিকরণের মাধ্যমে নারী ও যুবাদের ক্ষমতায়ন প্রকল্পের মাধ্যমে কুড়িগ্রাম সদরের পাঁচগাছী, যাত্রাপুর ও উলিপুর উপজেলার বজরা এবং বেগমগঞ্জ ইউনিয়নে ১৩ হাজার নারী ও যুবাদের আর্থিক উন্নয়নের পাশাপাশি ক্ষমতায়নে কাজ করা হচ্ছে। এতে আর্থিকভাবে সহযোগিতা করছে আন্তর্জাতিক দাতা সংস্থ্যা ট্রিকেলাপ ও মেডলাইট ফাউন্ডেশন। কারিগরি সহযোগিতা করছে কনসার্ন ওয়াল্ড ওয়াইড।

হলোখানা ইউপি চেয়ারম্যান উমর ফারুক জানান, সমাজে বেকার বসে থাকা নারী ও যুবাদের এই কর্মকাণ্ডে যুক্ত করার ফলে তারা নিজেদের উন্নয়নের পাশাপাশি সামাজিক বিভিন্ন সচেতনতামূলক কাজে সম্পৃক্ত হচ্ছে। কিছু নারী ও যুবা এর মাধ্যমে নিজেদের ভাগ্য বদলে সফলতা দেখিয়েছে।

ভয়েস টিভি/এমএইচ
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/30286
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2021 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ