Printed on Mon Oct 25 2021 7:17:18 AM

জাদুঘরের সম্পদ নষ্ট করলে ১০ বছর, চুরি করলে ৫ বছর কারাদণ্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক
জাতীয়
১০ বছর
১০ বছর
বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর আইন, ২০২১ এর খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হয়েছে। ৯ আগস্ট সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বৈঠক শেষে দুপুরে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম এসব কথা জানান।

সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যুক্ত হয়ে মন্ত্রিসভা বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সচিবালয় থেকে যোগ দেন মন্ত্রিসভার অন্য সদস্যরা।

অনুমোদিত নতুন আইন অনুযায়ী, জাদুঘরের স্থাবর নিদর্শন ধ্বংস বা ক্ষতি করলে ১০ বছর কারদণ্ড ভোগ করতে হবে। অথবা ১০ লাখ টাকা জরিমানা গুণতে হবে। কোন কোন ক্ষেত্রে উভয় দণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে।

চুরির জন্য আলাদা শাস্তির বিধান রাখা হয়েছে। জাদুঘর থেকে নিদর্শন চুরি, পাচার বা ক্ষতি করলে পাঁচ বছর কারদণ্ড ভোগ করতে হবে। অথবা জরিমানা করা হবে ৫ লাখ টাকা। এক্ষেত্রেও উভয় দণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে।

সামরিক শাসনামলে জারি করা অধ্যাদেশগুলোকে আইনে রূপান্তরের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। তাই উচ্চ আদালতের নির্দেশে এটিকে আইনে রূপান্তর করা হচ্ছে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব আরও জানান, চিড়িয়াখানার ব্যবস্থাপনা, পরিচালনা, পশু-পাখির চিকিৎসার ব্যবস্থা, দর্শনার্থীরা কীভাবে ঘুরবেন, স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী, সুবিধাবঞ্চিত বা প্রতিবন্ধীদের চিড়িয়াখানা দেখার জন্য বিশেষ সুবিধা ইত্যাদি বিষয়ে বলা হয়েছে আইনে।

সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, বাংলাদেশ চিড়িয়াখানা আইনে, ২০২১ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

তিনি আরও জানান, পূর্বের আইনে ফি ছাড়া চিড়িয়াখানায় ঢুকলে দুই বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও ৫ হাজার টাকা জরিমানার বিধান ছিল। কিন্তু জাদুঘরে ঢোকার ফি অনেক কম হওয়ায় এই শাস্তি পরিবর্তন করা হয়েছে। নতুন আইনে দুই মাসের জেল ও এক হাজার টাকা জরিমানার বিধান রাখা হচ্ছে। তবে কোন পশুর মাধ্যমে ক্ষতি হয়ে থাকলে কী হবে, ভেটিংয়ের সময় আইন মন্ত্রণালয় সেই সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেবে।

বৈঠকে নীতিগত অনুমোদন পেয়েছে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক কল্যাণ ট্রাস্ট আইন, ২০২১ এর খসড়া। মন্ত্রিসভার অনুমোদনে পূর্বের অধ্যাদেশকে বদলে এই আইন করা হচ্ছে।

আইনে বলা হয়েছে, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান ও অতিরিক্ত মহাপরিচালক এর ভাইস চেয়ারম্যান হবেন। ট্রাস্টি বোর্ডে আটজন তিন বছরের জন্য দায়িত্বে থাকবেন।

জানা গেছে, ট্রাস্টের সদস্য হতে প্রাথমিকের শিক্ষকদের এককালীন চাঁদা দিতে হয়। সদস্য শিক্ষকদের পাশাপাশি তাদের পোষ্যরা এখান থেকে সুবিধা পাবেন। কোনো শিক্ষকের মৃত্যু হলে তার নাবালক, প্রতিবন্ধী বা বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন সন্তানরা এই ট্রাস্ট থেকে সহায়তা পাবেন।

এছাড়া অনুদান হিসেবে সরকারি প্রতিষ্ঠান বা কোন ব্যক্তি কিছু দিলে ট্রাস্ট তা গ্রহণ করতে পারবে। বিধি দিয়ে বিষয়গুলো নির্ধারণ করে দেয়া হবে।
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/50667
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2021 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ