Printed on Fri Sep 17 2021 1:12:08 AM

ডলারের তুলনায় টাকার দাম কমছে কেন?

নিয়ামুল আজিজ সাদেক
জাতীয়ভিডিও সংবাদ
ডলারের তুলনায় টাকার দাম কমছে কেন?
ডলারের তুলনায় টাকার দাম কমছে কেন?
টাকার তুলনায় ডলারের দাম গত কয়েক বছরের তুলনায় সর্বোচ্চ। খোলাবাজারের পাশাপাশি ব্যাংকগুলোতেও দাম বাড়ছে। বিদেশি মুদ্রায় লেনদেনে নিয়োজিত অনুমোদিত ডিলার ব্যাংকগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ ৮৫ টাকায় ১ ডলার বিক্রি হয়। এর আগে কখনোই এত দামে ডলার বিক্রি হয়নি। এক বছরেরও বেশি সময় ধরে যুক্তরাষ্ট্রের মুদ্রা ডলারের বিপরীতে টাকার মান একই জায়গায় স্থির ছিল। মহামারি করোনাভাইরাসের এই কঠিন সময়ে ডলারের দর বাড়েওনি, কমেওনি। এর আগে ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে করোনাভাইরাসের প্রকোপের আগে ডলারের সর্বোচ্চ দর উঠেছিল ৮৪ দশমিক ৯৫ টাকা।

সংক্রমণ ঠেকাতে দেশব্যাপী লকডাউন ঘোষণার একদিন আগে ২৫ মার্চ টাকা-ডলারের বিনিময় হার ছিল ৮৪ টাকা ৯৫ পয়সা। ৩০ জুন তা কমে ৮৪ টাকা ৮০ পয়সায় নেমে আসে। এরপর থেকে ১ ডলারের জন্য ৮৪ টাকা ৮০ পয়সাই লাগছে। বাংলাদেশে পরিস্থিতি উন্নতি না হলেও উৎপাদন কর্মকাণ্ড পুরোদমে চলছে। সে কারণে আমদানি বেশ বেড়ে গেছে। আর তাই চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় ডলারও নড়াচড়া শুরু করেছে বলে ধারণা করছেন বিশেষজ্ঞরা।

চলতি আগস্ট মাসের প্রথম কর্মদিবস ২ আগস্ট আন্তব্যাংক মুদ্রা বিনিময় হার অনুযায়ী ডলারের ক্রয়মূল্য ছিল ৮৪ দশমিক ৮০ টাকা। বিক্রয় মূল্য ছিল ৮৪ দশমিক ৮১ টাকা। ১৯ আগস্ট আন্তব্যাংক মুদ্রা বিনিময় হার অনুযায়ী ডলারের ক্রয়মূল্য ছিল ৮৪ দশমিক ৯০ টাকা এবং বিক্রিয় মূল্য ছিল ৮৫ টাকা। অর্থাৎ চলতি মাসের প্রথম ১৯ দিনে বিদেশি মুদ্রায় লেনদেনে নিয়োজিত অনুমোদিত ডিলার ব্যাংকগুলোর মধ্যকার লেনদেনে ১০ পয়সা বেশি দিয়ে কেনা এবং ১৯ পয়সা বেশি দিয়ে বিক্রি হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত পরিসংখ্যান ঘেটে এ চিত্র পাওয়া যায়।

গত জুলাই মাসের শেষ কর্মদিবসে ২৯ জুলাই আন্তব্যাংক মুদ্রা বিনিময় হার অনুযায়ী, ডলারের ক্রয়মূল্য ছিল ৮৪ দশমিক ৮০ টাকা। বিক্রয়মূল্য ছিল ৮৪ দশমিক ৮০ টাকা। বিগত কয়েক মাস ধরেই এই দর একরকম স্থির ছিল।

বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিসংখ্যাণ অনুযায়ী, গত ২০১৪ সালের আগস্টে ডলারের আন্তব্যাংক মুদ্রা বিনিময় হার ছিল ৭৭ দশমিক ৪০ টাকা। ২০১৫ সালের আগস্টে এই দর বেড়ে হয় ৭৭ দশমিক ৮০ টাকা। ২০১৬ সালে আগস্টে ডলারের দর ছিল ৭৮ দশমিক ৪০ টাকা। ২০১৭ সালের আগস্টে ডলারের দর বেড়ে হয় ৮০ দশমিক ৭০ টাকা। ২০১৮ সালের আগস্টে ডলারের দর ৮৩ দশমিক ৭৫ টাকা হয়। ২০১৯ সালের ১২ জানুয়ারি ডলারের দর এক দিনে ৮৩ দশমিক ৯৫ টাকা থেকে এক লাফে ৮৪ দশমিক ৯০ টাকায় উঠে আসে। তবে এর পরপরই কেন্দ্রীয় ব্যাংকের হস্তক্ষেপে ডলারের দর আবার আগের অবস্থানে ফিরে আসে।

তবে ওই বছরের ডিসেম্বর নাগাদ ডলারের দর একটু একটু করে বেড়ে আবার ৮৪ দশমিক ৯০ টাকায় উঠে আসে। সে সময় অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এক অনুষ্ঠানে জানান সরকার টাকার অবমূল্যয়ন চায় না। এর ফলে ডলার বেশ কিছুকাল এই দরে স্থির ছিল। তবে ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে মে মাস পর্যন্ত ডলারের দর ছিল ৮৪ দশমিক ৯৫ টাকা। জুন মাসে ওই দর কমে ৮৪ দশমিক ৮৫ টাকায় নেমে আসে। এর পর থেকে ডলারের দর চলতি বছরের জুলাই পর্যন্ত ৮৪ দশমিক ৮০ টাকার মধ্যেই ছিল।

ব্যাংক কর্মকর্তারা বলছেন, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ সামলে নিয়ে অর্থনীতির চাকা আবার গতিশীল হচ্ছে। সামনে ডলারের দর বাড়তে পারে এমন সম্ভবনা থেকে অনেক ব্যাংক ডলার কেনা বাড়িয়েছে। তাদের আশঙ্কা সামনে রেমিট্যান্স কমে যাবে। ফলে ডলারের যোগান আগের মতো থাকবে না।

তাছাড়া চলতি অর্থবছরের মুদ্রানীতিতেও ডলারের দর বাড়ার ঈঙ্গিত দেয়া হয়। ফলে সর্বাধিক ব্যবহৃত এই বিদেশি মুদ্রাটির দেশের বাজারে দাম বাড়তে শুরু করে। আর গত ২৯ জুলাই মুদ্রানীতি ঘোষণার পর থেকেই ডলারের দর ধারাবাহিকভাবে বাড়তে দেখা যায়।

আরও পড়ুন : মহাকাশে বিশ্বের ধনী ব্যক্তির ১০ মিনিটের সঙ্গী হতে ব্যয় ২৩৮ কোটি!

ভয়েস টিভি/এএন

 
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/52147
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2021 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ