Printed on Sun Mar 07 2021 3:34:42 AM

দৌড়ালে মন ভালো হয়!

লাইফস্টাইল ডেস্ক
ভিডিও সংবাদলাইফস্টাইল
দৌড়ালে মন ভালো হয়
দৌড়ালে মন ভালো হয়
দৌড়ালে মন ভালো হয়! কথাটি শুনতে অবাক লাগলেও এটি সত্য। ২০০৬ সালে করা এক গবেষণায় দেখা গেছে, বিষণ্নতা যত বেশিই হোক না কেনো মাত্র ৩০ মিনিট দৌড়ালেই তা কমে যাবে। তবে আপনাকে খুব জোড়ে দৌড়াতে হবে না। ২০১৩ সালে করা আরেকটা গবেষণায় দেখা গেছে, বিষণ্নতা ভালো করার জন্য দৌড়ানো, ঔষধের মতো কাজ করে।

বিষণ্নতার পাশাপাশি দৌড়ানো দুশ্চিন্তা এবং মানসিক চাপও কমাতে পারে। ২০১২ সালে করা একটা গবেষণায় দেখা গেছে দৌড়ানো শেষ হওয়ার পরেও দুশ্চিন্তা ও মানসিক চাপ কম থাকে। ২০১২ সালে করা আরেকটা গবেষণায় দেখা যায় প্রতি সপ্তাহে তিন বার ৩০ মিনিট দৌড়ালে ঘুমের মান এবং মনোযোগ দেয়ার ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।

অনেকের ধারণা দৌড়ালে হাটুর ক্ষতি হয়। তবে গবেষকরা বলছেন, দৌড়ালে হাটু শক্তিশালী হয় এবং বয়স বাড়লে হাটু দুর্বল হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়।

ওজন কমাতে হলে আপনি প্রতিদিন যত ক্যালরি খাবেন, তার চেয়ে বেশি ক্যালরি পুড়াতে হবে। ব্যায়ামের সাহায্যে বেশি ক্যালরি পুড়ানো সম্ভব। ট্রেডমিলে দৌড়ানোর চেয়ে বাহিরে দৌড়ানো বা হাঁটা সবচেয়ে ভালো। হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটির গবেষকরা তিন ওজনের মানুষ ৩০ মিনিট দৌড়িয়ে কতটুকু ক্যালরি পুড়ায় তা পরীক্ষা করেছে। এতে দেখা যায় একজন ৭০ কেজি ওজনের মানুষ ৩০ মিনিটে ৫ কিলোমিটার দৌড়ালে ৩৭২ ক্যালরি পুড়ে। অন্যান্য ওজনের মানুষেরও প্রায় একই পরিমাণে ক্যালরি পুড়ে।

গবেষকরা বলছেন, বয়স বাড়লে মানুষের মস্তিষ্ক ভালো কাজ করে না। তবে নিয়মিত ব্যায়াম করলে এই সমস্যা এড়ানো সম্ভব। ২০১২ সালে প্রকাশিত একটা গবেষণায় দেখা গেছে, নিয়মিত ব্যায়াম করলে মনোযোগ দেয়ার ক্ষমতা, একই সঙ্গে একের অধিক কাজ করার ক্ষমতা, স্মৃতিশক্তি, ইত্যাদি আগের মতো ভালো থাকে।

গবেষণা তথ্যে আরো একটা জিনিস বার বার দেখা যায়, তা হলো নিয়মিত ব্যায়াম করা বয়স্ক মানুষরা মানসিক পরীক্ষায় ব্যায়াম না করা মানুষদের চেয়ে বেশি নাম্বার পায়। এছাড়া স্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়া মানুষরা নিয়মিত ব্যায়াম করলে তাদের স্মৃতিশক্তি, চিন্তাশক্তি, সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষমতা, ইত্যাদির প্রায় ৫০ ভাগ উন্নতি হয়।

ক্যান্সার
গবেষকরা বলেন, দৌড়ালে ক্যান্সার ভালো হয় না। তবে ১৭০ টি গবেষণা পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, যারা নিয়মিত ব্যায়াম করে তাদের ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে।

হার্টের রোগ কম হয়
জানা গেছে, নিয়মিত দৌড়ালে হৃদপিণ্ড ভালো থাকে। তবে খুব বেশি দৌড়ানোর প্রয়োজন নেই। ১৫ বছর ধরে ৫০ হাজার মানুষের উপরে করা একটা গবেষণায় দেখা গেছে, প্রতিদিন ৫ থেকে ১০ মিনিট দৌড়ালে হার্টের রোগ হওয়ার সম্ভাবনা ৪৫% পর্যন্ত কমতে পারে।

ঘুম ভালো হয়
আরেকটা উপকারিতা হচ্ছে, দৌড়ালে আপনার ঘুম ভালো হবে। গবেষণায় দেখা গেছে প্রতি সপ্তাহে ১৫০ মিনিট দৌড়ালে ঘুমের মান ৬৫% পর্যন্ত বাড়তে পারে। আরেক গবেষণায় দেখা গেছে ১৬ সপ্তাহ দৌড়ানোর কারণে ইনসোমনিয়াতে আক্রান্ত মানুষের রাত্রে ভালো ঘুম হয়েছে। বয়স্ক মানুষদের অনেক সময় ঘুমের সমস্যা হয়। নিয়মিত দৌড়ালে তাদেরও ভালো ঘুম হতে পারে।

দৌড়ানো শুরু করতে আপনার বিশেষ কোন কিছুর প্রয়োজন নেই। একটা জুতা, আরামদায়ক কাপড় এবং পানির বোতল থাকলেই চলবে। দৌড়ানোর উপকারিতা পেতে প্রতি সপ্তাহে ৩-৪ দিন দৌড়ানোর চেষ্টা করুন। প্রতিদিন ব্যায়ামের মাঝে কিছুটা বিরতি দেয়া ভালো। এতে আমাদের আমাদের শরীরের পেশিগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয় না। দৌড় শেষে শরীর ঠাণ্ডা হওয়ার সুযোগ দেওয়া উচিৎ।

অন্যান্য ব্যায়ামের চেয়ে দৌড়ানো ভালো হওয়ার আরেকটা কারণ হচ্ছে, দৌড়ালে বিরক্তি লাগার সম্ভাবনা কম। যদি বিরক্তি লাগা শুরু হয়, তাহলে নতুন এক রাস্তা দিয়ে দৌড়ানো শুরু করতে পারেন। তাতেও যদি কাজ না হয় তাহলে দৌড়ানোর জন্য একজন বন্ধুকে সঙ্গে নিতে পারেন।

ব্যায়ামের পরে আমাদের শরীরে কার্বোহাইড্রেট বা শর্করা, প্রোটিন, চর্বি, ভিটামিন ও মিনারেলের চাহিদা থাকে। তাই ব্যায়ামের পর ভিটামিনসমৃদ্ধ খাবার খাওয়া ভালো।
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/36733
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2021 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ