Printed on Wed Oct 20 2021 6:32:47 AM

বলাৎকারের কথা প্রকাশ হওয়ার ভয়ে আরাফাতকে হত্যা করেন অধ্যক্ষ মোশারফ

ফেনী প্রতিনিধি
অপরাধ
বলাৎকারের কথা প্রকাশ হওয়ার ভয়ে আরাফাতকে হত্যা
বলাৎকারের কথা প্রকাশ হওয়ার ভয়ে আরাফাতকে হত্যা
ফেনীর সোনাগাজীতে মাদ্রাসা ছাত্র আরাফাত হোসেনকে (৯) হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন অধ্যক্ষ মোশারফ হোসেন (৪২)। ওই ছাত্রকে বলাৎকারের পর বিষয়টি প্রকাশ হয়ে যাওয়ার ভয়েই হত্যার পথ বেছে নেন বলে আদালতকে জানান তিনি। ২৬ আগস্ট বৃহস্পতিবার ফেনীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. জাকির হোসাঈনের আদালতে অধ্যক্ষের দেয়া জবানবন্দি লিপিবদ্ধ করা হয়।

অধ্যক্ষ মোশারফ হোসেন উপজেলার চরমজলিশপুর ইউনিয়নের চরলক্ষীগঞ্জ হাফেজ সামছুল হক (রঃ) নুরানী হাফিজিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানার অধ্যক্ষ। তার বাড়ি ময়মনসিংহের কিশোরগঞ্জ উপজেলায়।

নিহত আরাফাত একই মাদরাসা ও এতিমখানার ছাত্র। তার বাড়ি উপজেলার চরমজলিশপুর ইউনিয়নের ছয়আনি গ্রামে। তার বাবার নাম ফানা উল্লাহ।

এর আগে ২২ আগস্ট রবিবার ভোর ৪টার দিকে হেফজ বিভাগের ছাত্র আরাফাত হোসেনকে হত্যা করে মাদ্রাসা সংলগ্ন দাগনভূঞা উপজেলার মাতুভূঞা ইউপির মোমারিজপুর এলাকার একটি ডোবায় লাশ ফেলে দেয় দুর্বৃত্তরা। এরপর পানিতে ডুবে ওই ছাত্রের মৃত্যু হয়েছে বলে এলাকায় প্রচার করেন তারা। খবর পেয়ে দাগনভূঞা থানা পুলিশ সেখান থেকে লাশ উদ্ধার করে। মরদেহের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন থাকায় আরাফাতের পিতা বাদী হয়ে এ ঘটনায় অধ্যক্ষসহ ৪ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করেন।

এরপর ওই দিন রাতেই মাদ্রাসায় অভিযান চালিয়ে অধ্যক্ষ মোশারফ হোসেন ও আরাফাতের এক সহপাঠিসহ আরো দুই শিক্ষককে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

২৩ আগস্ট সোমবার গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে অধ্যক্ষ মোশারফ হোসেনকে ৪ দিনের, সহকারী শিক্ষক আজিম উদ্দিন (৩৩) ও নুর আলীকে ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। সেইসঙ্গে গ্রেপ্তারকৃত জোবায়ের আলম ফাইজকে (১১) গাজীপুর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে প্রেরণের আদেশ দেওয়া হয়।

দাগনভূঞা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইমতিয়াজ আহমেদ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন , ৪ দিনের রিমান্ড শেষে অধ্যক্ষকে আদালতে পাঠানো হয়। সেখানে তিনি ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবনন্দি প্রদান করেন। এরপর তাকে কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

এদিকে আদালত সূত্রে জানা যায়, এর আগেও আরাফাতকে বলাৎকার করেছেন বলে স্বীকার করেন অধ্যক্ষ মোশারফ হোসেন। ২১ আগস্ট শনিবার রাতে বলাৎকারের পর আরাফাত বিষয়টি তার পিতাকে বলে দেবে বলে অধ্যক্ষকে জানালে তিনি হত্যার সিদ্ধান্ত নেন। এ পর্যায়ে গলা টিপে আরাফাতকে হত্যা করে লাশ মাদ্রাসা সংলগ্ন ওই ডোবায় ফেলে দেন।

আরও পড়ুন : হিলিতে মাদ্রাসা ছাত্র বলাৎকারের অভিযোগে শিক্ষক আটক

ভয়েস টিভি/এএন
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/52446
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2021 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ