Printed on Sun Jun 26 2022 8:44:51 PM

দেশের ভাষা-সংস্কৃতিকে বিশ্বব্যাপী বিকশিত করা হবে: প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
জাতীয়
বিকশিত করা
বিকশিত করা

আমাদের ভাষা, সাহিত্য-সংস্কৃতি যেন আন্তর্জাতিক পর্যায়ে আরও বিকশিত হয়, সেটাই সরকারের প্রচেষ্টা থাকবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।


তিনি বলেন, ‘সেই প্রচেষ্টায়ও আমরা সফলতা অর্জন করব বলে বিশ্বাস করি। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে।’


জাতীয় ক্ষেত্রে অনন্য অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে ২০ ফেব্রুয়ারি রোববার রাষ্ট্রের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সম্মাননা একুশে পদক প্রদান অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হন।


গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখার জন্য দেশের ২৪ গুণী নাগরিককে এবার একুশে পদক দেওয়া হয়। প্রধানমন্ত্রী তাঁর পক্ষে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হককে পুরস্কারপ্রাপ্ত ব্যক্তি ও তাঁদের পরিবারের সদস্যদের হাতে পদক হস্তান্তর করার অনুরোধ করেন। তিনি বলেন, ‘আশা করি ভবিষ্যতে আবার দেখা হবে, আসব।’


আরও পড়ুন: ‘বাংলাদেশ-জাপান বন্ধুত্ব সময়ের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘যা কিছু অর্জন, আমরা যতটুকু করতে পেরেছি, মহান আত্মত্যাগের মধ্য দিয়েই কিন্তু তা করতে পেরেছি। যেটা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সব সময় বলতেন এবং তাঁর লেখায়ও আছে যে, মহান অর্জনের জন্য মহান আত্মত্যাগ দরকার। আর সেই আত্মত্যাগের মধ্য দিয়েই আজকে আমরা অর্জন করেছি আমাদের স্বাধীনতা, ভাষার অধিকার। মায়ের ভাষায় কথা বলার অধিকার।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মাকে মা বলে ডাকার এই অধিকার অর্জন আমাদের জন্য একটা বিরাট পাওয়া। আর এরই পথ ধরে পেয়েছি আমরা স্বাধীনতা। কাজেই এই স্বাধীনতা সমুন্নত রেখে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে।’


২১ ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে বিশ্বে স্বীকৃতি পাওয়ার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এইটুকু বলতে পারি, আজকে আমরা বিশ্বে মাথা উঁচু করে চলতে পারছি। পাশাপাশি আমাদের অবদান আজকে সারা বিশ্ব স্বীকৃতি দিয়েছে। একুশে ফেব্রুয়ারি শুধু আমাদের না, এটা যারা মাতৃভাষা ভালোবাসে এবং মাতৃভাষার জন্য যারা জীবন দিয়েছে এবং মাতৃভাষাকে সংরক্ষণ করা, হারিয়ে যাওয়া মাতৃভাষা খুঁজে বের করা এবং সেগুলো সংরক্ষিত করা সেটাই আমাদের প্রচেষ্টা। সেই প্রচেষ্টায় আমরা সফলকাম হয়েছি। আজকে একুশে ফেব্রুয়ারি শুধু বাংলাদেশে নয়, বিশ্বব্যাপী পালন করা হচ্ছে।’


গুণীজনদের দেখানো পথে নতুন প্রজন্ম দেশের কল্যাণে কাজ করবে এমন আশাবাদ ব্যক্ত করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের এই গুণীজনেরাই তো পথ দেখায়। আপনাদের বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদানের জন্য আমাদের এই অগ্রযাত্রা সম্ভব। তাই আমি সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই। একই সঙ্গে আপনাদের পদাঙ্ক অনুসরণ করে নতুন প্রজন্ম দেশের কল্যাণে কাজ করবে সেটাই আমি চাই।’


একুশে পদকপ্রাপ্তদের অভিনন্দন জানিয়ে সরকারপ্রধান বলেন, ‘আমাদের সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে যাঁরা অবদান রেখে যাচ্ছেন, তাঁদের সবাইকে আমরা সম্মান দিতে পারি না। তবু আমাদের প্রচেষ্টা হচ্ছে, যাঁরা একসময় অবদান রেখেছেন এবং অনেকে হয়তো হারিয়েও যাচ্ছিলেন, আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি তাঁদেরও খুঁজে বের করতে এবং তাঁদের সম্মান করতে।’


প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজকে যে কজন গুণীজন এখানে পুরস্কৃত হয়েছেন, তার মধ্যে অনেকের ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে ’৬৯ সালের গণ-অভ্যুত্থান, সত্তরের নির্বাচন, একাত্তরের মুক্তিসংগ্রামে তাঁদের অনেক অবদান রয়েছে।


শেখ হাসিনা বলেন, ‘হঠাৎ ঘোষণায় স্বাধীনতা আসে না। সংগ্রামের পথ বেয়েই কিন্তু এই স্বাধীনতা এসেছে। আর সেই স্বাধীনতার সংগ্রাম শুরুই করেছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব। তাঁরই অবদান আজকে আমাদের স্বাধীন সত্তা, স্বাধীন জাতিসত্তা এবং বাংলাদেশ একটি স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠা।’


মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলামের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ। স্বাগত বক্তব্য দেন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আবুল মনসুর।’


ভয়েসটিভি/আরকে
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/67367
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2022 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ