Printed on Thu Mar 04 2021 3:22:35 PM

সাতক্ষীরায় মার্চেন্ট কো-অপারেটিভের বিরুদ্ধে টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি
সারাদেশ
বিরুদ্ধে
বিরুদ্ধে
সাতক্ষীরার আবুল কাশেম সড়কস্থ জেড প্লাজায় অবস্থিত মার্চেন্ট কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেডের বিরুদ্ধে গ্রাহকদের টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরকার অনুমোদিত এ প্রতিষ্ঠানটি জেলার ৭০০ গ্রাহকের প্রায় ১১ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয় বলে জানা গেছে।

২১ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে সমিতির সদস্যদের পক্ষে আব্দুল খালেক এ অভিযোগ করেন।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, মার্চেন্ট কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড সরকার অনুমোদিত একটি অর্থ লগ্নীকারি প্রতিষ্ঠান। যার রেজিঃ নং-৪৫/৩। সমিতির সদস্য সংখ্যা ৭০০ জন। সমিতির ছয় সদস্যের পরিচালনা কমিটির সভাপতি শেখ আহসানুর রশিদ ও সাধারণ সম্পাদক শেখ মামুনুর রশিদ বার্ষিক সাধারণ সভা না করেই তাদের ইচ্ছামত কার্যক্রম চালাচ্ছেন।

তারা অধিক মুনাফা (১৮%-২০%) দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে গ্রাহকদের কাছ থেকে মোট ১১ কোটি টাকা জামানাত নেন। কৌশলে ২০০৯ সাল থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত পরিবারের সদস্য আত্মীয় ও বন্ধুদের নামে মেথ্য লোন দেখিয়ে শেখ আহসানুর রশিদ এক কোটি ২৫ লাখ, শেখ মামুনুর রশিদ ২ কোটি ৩০ লাখ, তানিয়া ৫০ লাখ, হোসনে আরা ৫ লাখ, বাহারুল ১৯ লাখ, তৌফিক ১৯ লাখ, মনিরুজ্জামান ১৬ লাখ, সহিদুল ১১ লাখ, এহেসান ৭০ হাজার, শামীম ৫ লাখ, জান্নাতুল ২ লাখ, সোফিয়া ১০ লাখ, ইসমাইল পরিবারের নামে ২ কোটি ৪৯ লাখ, ব্যাংক থেকে নেয়া এক কোটি টাকা, বেতন ভাতা ২ কোটি ১০ লাখ ও মালামাল বাবদ এক কোটি অতিরিক্ত ভাউচার দেখিয়ে মোট ১১ কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছেন।

তিনি আরও বলেন, সদস্যরা ২০২০ সালের জুন মাসে জামানতের এবং মুনফার টাকা দাবি করলে সভাপতি বার বার ওয়াদা করে তালবাহনা শুরু করেন। অবশেষে গত বছরের ২৯ অক্টোবর পাওনা টাকার জন্যে সদস্যরা সমিতির কার্যালয়ে অবস্থান ধর্মঘট শুরু করে। পরে পৌরসভার ৯ ওযার্ডের কাউন্সিলর সাগরের মধ্যস্থতায় সভাপতি তিন মাসের মধ্যে সমিতির তহবিলে পাঁচ কোটি টাকা জমা দিবেন বলে লিখিত অঙ্গীকার করে।

গ্যারান্টি হিসেবে পাঁচ কোটি টাকার একটি চেক প্রদান করেন। এ ঘটনার পর তলবী নোটিশের প্রেক্ষিতে ২০২০ সালের ১২ ডিসেম্বর বিশেষ সাধারণ সভায় সাত সদস্যের উপদেষ্টা কমিটি গঠন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বলেন, সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের প্রতারনার বিষয় জানতে পেরে ২০২০ সালের ৮ নভেম্বর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, দুদক চেয়ারম্যান, ডিআইজি, ডিসি, এসপি ও সমবায় কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ করা হয়। এর প্রেক্ষিতে ডিআইজি নির্দেশনা মোতাবেক সাতক্ষীরা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার প্রতি রবিবার ডিসি অফিসে হাজিরা দেয়াসহ জমা টাকার রির্পোট দিতে বলেন।

সমিতির গ্রাহক আব্দুল খালেক অভিযোগ করে বলেন, শেখ আহসানুর রশিদ তার গুন্ডা বাহিনী দিয়ে পাওনা দারদের উপর হামলা চালাচ্ছে ও জীবন নাশের হুমকি দিচ্ছে। বিষয়টি অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকে গত ১২ জানয়ারি অবহিত করা হয়েছে।

এদিকে তারা না জানিয়ে সমিতির অফিস থেকে ৩টি এসি ও একটি কম্পিউটার নিয়ে গেছে। প্রতারকদের বিরুদ্ধে চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা চলমান রয়েছে। এই পরিস্থিতিতে গ্রাহকদের জামানতের ১১ কোটি টাকা ফেরতসহ প্রতারক শেখ আহসানুর রশিদ ও শেখ মামুনুর রশিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি করছি।

এসময় প্রতরণার শিকার অর্ধশতাধিক গ্রাহক উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন : চাঞ্চল্যকর রশিদ হত্যা মামলায় ১৪ জনের যাবজ্জীবন

ভয়েস টিভি/এমএইচ
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/32843
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2021 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ