Printed on Sun May 09 2021 8:44:30 AM

ব্রিজ নয় যেন মরণফাঁদ

মমিনুল ইসলাম বাবু, কুড়িগ্রাম
সারাদেশ
ব্রিজ
ব্রিজ
কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীর ভিতরবন্দ ইউনিয়নের কছিয়ার বিলের ওপর নির্মিত ডুবুরির ব্রিজের স্লাবের উভয় প্রান্ত এবং মাঝখানে ভেঙে অচলাবস্থা তৈরি হয়েছে। দেবে গেছে ব্রিজের অনেকটা। দু’দিকে কাঠ ও বাঁশের চাটাই বিছিয়ে কোনোমতে যাতায়াত সচল রাখা হলেও সেগুলেও ভেঙে এখন ডুবুরির ব্রিজ যেন মরণফাঁদ।

ব্রিজটি এলাকার মানুষের কাছে যেনো এক আতঙ্কের নাম। এরপরও উপায়ন্তর না থাকায় ভয়ংকর এই সেতু দিয়েই ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হচ্ছে ৮ গ্রামের প্রায় ৩৫ হাজার মানুষ। দ্রুত সংস্কার না করলে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ার আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা। এছাড়া এই ভঙ্গুর ব্রিজ দিয়ে চলাচলের সময় যেকোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে জানিয়েছে স্থানীয়রা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় উপজেলার ভিতরবন্দ ইউনিয়নের নন্দনপুর এলাকার কছিয়ার বিলের ওপর নির্মিত ডুবুরির ব্রিজটি একেবারেই ঝুঁকিপূর্ণ। এরপরও প্রতিদিন, শিশু, কিশোর শিক্ষার্থীসহ নানা শ্রেণি-পেশার মানুষের যাতায়াত এই ব্রিজের ওপর দিয়েই। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজের তাগিদেই বাধ্য হয়ে এ পথে যাতয়াত করতে হয় তাদের। রিকশা-ভ্যান চলার অনুপযোগী হওয়ায় হাট-বাজারে কৃষিপণ্য আনা নেয়াসহ সকল প্রকার কাজে চরম ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে তাদের।

ব্রিজটি সংস্কার নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন চালিয়ে আসছেন স্থানীয় সমাজসেবক এবং অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক গোলাপ উদ্দিন মিয়া। স্থানীয় চেয়ারম্যান, এমপি এমনকী অনেক দপ্তরে ঘুরেও ব্রিজটি সংস্কার করাতে পারেননি বলে জানান তিনি।

তিনি আরও জানান, বিষয়টি উর্ধ্বেতন কর্তৃপক্ষের নজরে আনতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ বহু লোকের কাছে দেন দরবার এমনকি সভা সেমিনার ও মানববন্ধনও করেছেন তিনি। কিন্তু কেউ বিষয়টি আমলে নেননি। মানুষের কষ্ট লাঘবে অবিলম্বে এই ব্রিজ নির্মানের দাবি করেন তিনি।

স্থানীয়দের অভিযোগ নির্বাচনের সময় এলে শুধু ভোট চাইতে আসেন বিভিন্ন দলের নেতা কর্মীরা। দিয়ে যান ব্রিজ নির্মাণের প্রতিশ্রুতিও। কিন্তু ভোট পেরুলেই আর কখনোই দেখা মেলে না তাদের।

আরও পড়ুন: ভোমরা বন্দরে শ্রমিক ধর্মঘটে ২০ কোটি টাকা রাজস্ব হারিয়েছে সরকার

ডাক্তারে কাছে যাচ্ছিলেন রাধা রানী নামের এক নারী। তিনি জানান, জরুরি কোনো প্রয়োজন বা কেউ অসুস্থ হলে এ রাস্তা দিয়ে ওই রোগীকে নিয়ে হাসপাতাল কিংবা ক্লিনিকে যাওয়া যায় না। গুরুতর অবস্থায় রোগীকে নিয়ে যেতে যেতেই রোগীই মারা যায়। এর আগে তার স্বামী এ পথে মোটরবাইক নিয়ে পারাপারের সময় চরম দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন বলেও জানান ওই নারী।

আইসক্রিম বিক্রেতা জহুরুল হক জানান, প্রতিনিয়ত এই পথে আইসক্রিমের বাক্স বাই-সাইকেলের পিছনে বেঁধে গ্রামে গ্রামে আইসক্রিম বিক্রি করতে বের হন তিনি। কিন্তু রাতের অন্ধকারে বাড়ি ফেরা দায় হয়ে পরে তার।

স্থানীয় কৃষক, সুবল চন্দ্র সরকার, রাধাপদ সরকার, শাহজাহান আলীসহ আরও অনেকে জানায় এই ব্রিজটি না থাকায় এ পথে কৃষিপণ্য নিয়ে চরম বিপাকে পরেন তারা। সঠিক মূল্য থেকেও বঞ্চিত হতে হয় তাদের।

এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকৌশলী আসিফ ইকবাল রাজিব বলেন, আমি অতিরিক্ত দায়িত্ব পেয়ে এখানে নতুন যোগদান করেছি। তাই আমি ওই ব্রিজ সম্পর্কে জানি না এবং ওই ব্রিজটি করার জন্য কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে কি না সে ব্যাপারেও আমার জানা নেই।

আরও পড়ুন: পাবনায় এলজিইডির ভুলে নির্মিত ব্রিজে জনদুর্ভোগ

ভয়েস টিভি/এসএফ
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/41207
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2021 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ