Printed on Tue Apr 13 2021 8:31:18 PM

‘ভালো অভিনেতা না হলে দর্শককে কাঁদানো বা হাসানো যায় না’

মেহেদী হাসান, ভয়েস টিভি
বিনোদনভিডিও সংবাদ
ভালো অভিনেতা
ভালো অভিনেতা
বাংলাদেশ ও কলকাতার  চলচ্চিত্র অঙ্গনে পরিচিত মুখ অভিনেতা জিয়াউল রোশান। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া পৌরসভার সাবেক মেয়র নুরুল হক ভূইয়ার ছেলে রোশান দুই দেশেই সমান তালে পরিচিত।

২০১৬ সালে `রক্ত‘ সিনেমার মাধ্যমে চলচ্চিত্রে অভিষেক।  শামিম আহমেদ রনির নির্মিত ‘ধ্যাৎতেরিকি’ তাঁর দ্বিতীয় চলচ্চিত্র। ২০১৭ সালে মুক্তি পায় তার অভিনীত ভারতীয় বাংলা চলচ্চিত্র ‘ককপিট’। এর মাধ্যমেই চলচ্চিত্র অঙ্গনে বেশ জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন তিনি।

সম্প্রতি শাপলা মিডিয়ার শত চলচ্চিত্রের মহরতে হাজির হন এ অভিনেতা। এসময়  ভয়েস টিভির সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় নানা বিষয়ে কথা বলেন তিনি।

২০১৬ থেকে চলচ্চিত্রে আসার গল্প দিয়ে শুরু করে তিনি জানান,  এ পর্যন্ত ৪টি চলচ্চিত্র মুক্তি পেয়েছে। প্রথম ছবি ‘রক্ত’। সর্বশেষ বেপরোয়া সিনেমা  বিগেস্ট অ্যাকশান ফিল্ম। মুক্তির অপেক্ষায় আছে তার ওস্তাদ অরণ্য মামুনের `মেকাপ’ ও ‘সাইকো‘, অপূর্ব রানার ‘উন্মাদ’, আরটিভির ‘কর্পোরেট’, মোস্তাফিজুর রহমান মানিক পরিচালিত ‘আশির্বাদ’,  র‌্যাব বাহিনীকে নিয়ে নির্মিত ‘অপারেশন সুন্দরবন’। বর্তমানে শাপলা মিডিয়ার `চোখ‘ সিনেমায় তিনি অভিনয় করছেন। এছাড়া আরও কিছু সিনেমায় কাজ করার জন্যে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন। এরমধ্যে তিনটি ছবি ব্যাক টু ব্যাক হবে।

বাংলাদেশি চলচ্চিত্রের বেহাল দশা’ কথাটি মানতে নারাজ এই অভিনেতা। তিনি বলেন, আমি বলবো না যে, চলচ্চিত্রের বেহাল দশা। ভালো সিনেমা হচ্ছে, হয়তো দর্শকদের সিনেমা হলে আসার প্রবণতা কমেছে। অপরদিকে বিদেশি সিনেমার প্রভাব বা ঘরে বসে ইউটিউবে দেখার প্রবণতা বেড়েছে। এজন্য হয়তো মনে হতে পারে আমরা একটু পিছিয়ে আছি। তবে আমি বলবো না খুব বেশি পিছিয়ে আছি। যদি পিছিয়েই থাকতাম, তাহলে হয়তো প্রতিনিয়ত সিনেমা করতাম না।

ভালো অভিনেতা

মাসের প্রতিটি দিনিই অভিনয়ে ব্যস্ত থাকেন জানিয়ে তিনি বলেন, আমাদের অবস্থা ভালোই আছে। শুধু দর্শকদের আরও উৎসাহী হতে হবে। অবশ্য সেজন্যে ভালো গল্প প্রয়োজন। সে সঙ্গে আমাদের সিনেমা হলের পরিবেশও উন্নত করা প্রয়োজন এবং সেটিও হচ্ছেও। সবকিছু মিলিয়ে আমার মনে হয়েছে এই পরিস্থিতি খুব বেশিদিন থাকবে না।

সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক সিনেমা হল উন্নয়নের জন্যে ঋণ প্রদানের ঘোষণাকে সাধুবাদ জানিয়ে রোশান বলেন, সিনেমা হলো বিনোদনের একটা মাধ্যম। বিনোদনের জায়গাটার পরিবেশ সবসময়ই সুন্দর হওয়া দরকার, যেখানে বসে দর্শকরা সিনেমা দেখবে। সেই জায়গাগুলো যদি উন্নত হয়, দর্শক আরও স্বাচ্ছন্দ্যে সিনেমা দেখতে পারবে। আমরা চাই প্রতিটি সিনেমা হল সিনেপ্লেক্স বা ব্লকবাস্টারের মতো হোক। ততটুকু না হলেও অন্তত কাছাকাছি হোক। যাতে সব ধরনের মানুষ কমফোর্ট ফিল করে। পরিবেশটা আমার জন্যে না, এমন যেন কেউ না ভাবে। সেই জায়গা থেকে বলবো, এটা খুবই ভালো একটা উদ্যোগ এবং আমি এটারই অপেক্ষায় ছিলাম। এর বাস্তবায়ন হলে দর্শকরা সিনেমা হলমুখি হবে।

আগের মতো সিনেমা হলে যাওয়ার প্রবণতা আবার ফিরে আসুক তিনি এমনটাই কামনা করেন। তিনি বলেন, একসময় অনেক সিনেমা হল ছিলো। কিন্তু এখন কমে গেছে। আমি চাই সিনেমা হল আরও বাড়ুক। কোয়ালিটিফুল সিনেমা হল থাকবে, যেন দর্শকদের জন্যে ভালো পরিবেশ বজায় থাকে।

গত ১৬ ফেব্রুয়ারি অন্যতম বৃহৎ প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান শাপলা মিডিয়া ১০০ সিনেমা নির্মাণের ঘোষণা দেয়। এ ঘোষণায় চলচ্চিত্র পাড়ায় বেশ আমেজ সৃষ্টি হয়েছে। অন্যান্যদের মতো উচ্ছ্বসিত অভিনেতা জিয়াউল রোশানও।

তিনি বলেন, ডেফিনেটলি চলচ্চিত্র অঙ্গনের একজন অভিনেতা হিসেবে আমি বলবো এটা আমাদের জন্যে অনেক বড় একটা সুখবর। কারণ আমরা যারা চলচ্চিত্রকে সত্যিকার অর্থে ভালোবাসি; টেকনিশিয়ান বলেন বা অভিনেতা, সিনেমার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট যারা আছে তারা সবাই চায় নতুন নতুন ভালো ছবি পেতে।

শাপলা মিডিয়ার কর্ণধার মো. সেলিম খানকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, ১০০ ছবির ঘোষণা দেয়া, সেগুলো নিয়ে কাজ শুরু করা এবং সেই ছবিগুলো মানুষকে উপহার দেয়া; এই উদ্যোগ নেয়ার জন্যে সত্যিই সাধুবাদ জানাই।

এটা দর্শকদের যেমন চাঙ্গা করবে, তেমনি পুরো মিডিয়া পাড়াকে চাঙ্গা করবে। আমি বলবো, তিনি খুব ভালো একটা আইডিয়া সফল করতে যাচ্ছেন। তিনি ইন্ড্রাস্ট্রির এই পরিস্থিতির মধ্যে একটি দুঃসাহসিক পদক্ষেপ নিয়েছেন। অন্তরের অন্তর স্থল থেকে দোয়া করি তিনি যেন সফল হন। তিনি যেভাবে চাচ্ছন সেভাবে যেন হয় এবং সিনেমাগুলো যেন দর্শক নন্দিত হয়।

ভালো অভিনেতা

শাপলা মিডিয়া শত সিনেমা নির্মাণের ঘোষণা বাস্তবায়নে করোনা মহামারি কোনো প্রভাব ফেলবে না বলে মনে করেন রোশান। তিনি বলেন, করোনা মধ্যে কিন্তু আমরা একটা বছর কাটিয়েছি। কোনো কাজ করিনি। করেনাকে ভয় পেয়ে আমরা বসে ছিলাম। সত্যি বলতে আমি করোনাকে পরোয়া করি না। কারণ করোনাকে নিয়ে এখন বর্তমানে বাংলাদেশের যে অবস্থা সেটা আমরা কেয়ার করছি না। যাচ্ছেতাই ঘুরে বেড়াচ্ছি, মিটিংয়ে যাচ্ছি সবকিছু করছি। ওভাবে কারো কিন্তু করোনা হচ্ছে না।

তিনি আরও বলেন, বিশেষজ্ঞদের মাধ্যমে যতটুকু জেনেছি বাংলাদেশে করোনা অতটা ইফেক্টিভ না। অন্যান্য দেশে হয়তো এর প্রাদুর্ভাব অনেক স্ট্রং। সুতারাং করোনাকে নিয়ে আমরা একেবারেই চিন্তা করছি না। করোনার পর আমি দুইটা ছবি শুরু করে শেষ করেছি। কিছু পেস ওয়ার্কসহ কনটিনিউ কাজ করছি।

সিনেমা হল চাঙ্গা করার বিষয়ে বিশেষভাবে জোর দিয়ে তিনি বলেন, আমরা চাঙ্গা হয়ে গেছি, কিন্তু সিনেমা হলে দর্শক যাওয়ার ব্যাপারটা এখনো নিশ্চিত হয়নি। এবার ঈদেরও বেশ কয়েকটি সিনেমা মুক্তি পাবে। মাঝেও অবশ্য কিছু ছবি মুক্তি পেয়েছে। আমার বিশ্বাস দর্শকদের সিনেমা হলে গিয়ে সিনেমা দেখার যে উচ্ছ্বাস সেটা আবারও বাড়বে এবং আগের সেই স্বাভাবিক পরিস্থিতি ফিরে আসবে।

অভিনয়ে নতুন যারা আসছে তাদের ব্যাপারে কোনো দিক নির্দেশনা আছে কিনা জানতে চাইলে উচ্চস্বরে হেসে ওঠেন রোশান।

তিনি বলেন, জ্ঞান দেয়ার মতো জ্ঞানী আমি এখনো হইনি। আমি নিজেও যথেষ্ট ছোট।  সিনেমাতে একটা আউটলুক বড় ফ্যাক্ট, সেটা নির্ধারণ করে পরিচালক। এছাড়া একজন অভিনেতাকে অভিনয় ও নাচের দিক থেকেও ভালও করতে হবে। আমি তো জ্ঞানী নই, তবে এটুকু বলতে পারি যে, অভিনয়ের উপর ফোকাস করাটা খুবই দরকার। কারণ একজন ভালো অভিনেতা না হলে দর্শককে কাঁদানো বা হাঁসানো যায় না।

আরও পড়ুন : শাপলা মিডিয়ার ১০০ চলচ্চিত্রে উচ্ছ্বসিত ফারিন খান

ভয়েস টিভি/এমএইচ/ডিএইচ
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/37886
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2021 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ