Printed on Mon May 17 2021 1:25:58 AM

স্ত্রীর প্রেমিককে খুন করে বুড়িগঙ্গায় ভাসিয়ে দিলেন স্বামী

অনলাইন ডেস্ক
জাতীয়
ভাসিয়ে
ভাসিয়ে
এক প্রেম ছেড়ে আরেক প্রেম। দ্বিতীয় প্রেম চলতে চলতে ফিরে আসে পুরনো প্রেমিকও। ত্রিভুজ প্রেমের এক পর্যায়ে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন প্রেমিকা। বিয়ে করেন দ্বিতীয়জনকে। নবজাতকের পিতা হিসেবে স্ত্রীর প্রেমিককে সন্দেহ হয় স্বামীর। সন্দেহ থেকে পরিকল্পনা করে স্ত্রীর প্রেমিককে বুড়িগঙ্গার তীরে নিয়ে খুনের পর ভাসিয়ে দিলেন মরদেহ। একটি নিখোঁজ সাধারণ ডায়েরির তদন্তে বেরিয়ে এসেছে চাঞ্চল্যকর এই তথ্য।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ঢাকার কামরাঙ্গীরচরে অনলাইন ফুড ডেলিভারির ব্যবসায়ী জহিরুল ইসলাম রিমনের প্রতিষ্ঠানে প্রায় দু’বছর আগে কাজ নেন মিম। দ্রুতই গড়ে ওঠে দু’জনের প্রেম। ব্যবসায় সহায়তার জন্য প্রেমিককে বিশ হাজার টাকা ধার দেন প্রেমিকা। সাত মাস পর ভেঙে যায় দু’জনের সম্পর্ক।

এরপর মোটর মেকানিক শুভ’র সঙ্গে পরিচয় থেকে প্রেম মিমের। ক’দিন বাদে ফিরে আসে পুরনো প্রেমিকও। ত্রিভুজ প্রেমের এক পর্যায়ে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন মিম। কিছুদিন পর বিয়ে করেন দ্বিতীয় প্রেমিক শুভকে। ছয় মাস আগে জন্ম নেয় নবজাতক। মিমের পরকীয়া সম্পর্ক জেনে যাওয়ায় সন্তানের পিতা হিসেবে স্ত্রীর প্রেমিককে সন্দেহ হয় স্বামীর।

এ মাসের ৭ তারিখে কামরাঙ্গীরচর থেকে রিমনকে সিএনজি অটোরিকশায় তুলে কেরানীগঞ্জের আঁটিবাজারের দিকে রওনা দেন শুভ। পথে ইয়ামিন নামে আরেকজনকে তুলে নেন নিজের সুরক্ষার জন্য। তারপর তিনজন মিলে চলে যান বুড়িগঙ্গার তীরে। স্ত্রীর সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে রিমনের সঙ্গে কথা বলেন শুভ। ভুল স্বীকার করে ক্ষমা চান রিমন। তখনই কোমরে লুকিয়ে রাখা হাতুড়ি বের করে পিটিয়ে স্ত্রীর প্রেমিককে খুন করে মরদেহ নদীতে ভাসিয়ে দেন শুভ।

চব্বিশ ঘণ্টারও বেশি সময় পর শৈলমাছি ঘাটের কাছে ভেসে ওঠে মরদেহ। উদ্ধারের পর সাভার থানায় মামলা করে নৌ পুলিশ।

পরদিন কামরাঙ্গীরচর থানায় নিখোঁজ সাধারণ ডায়েরি করেন রিমনের স্বজনরা। রিমনের সঙ্গে থাকা মোবাইল উদ্ধারের সূত্রে শুভকে গ্রেফতার করে পুলিশ। বেরিয়ে আসে খুনের তথ্য।

ঢাকা মহানগর পুলিশের লালবাগ বিভাগের উপ কমিশনার বিপ্লব বিজয় তালুকদার বলেন, “তাকে (শুভ) জিজ্ঞাসাবাদ করতে করতে এক সময় সে বলে রিমনকে সে মেরে ফেলেছে। তার বউয়ের সাথে রিমনের সম্পর্ক ছিল। এটা সে সহ্য করতে পারেনি। তার বউও স্বীকার করেছে রিমনের সাথে তার সম্পর্ক ছিল এবং তারা একসাথে ব্যবসাও করতো।”

অজ্ঞাত মরদেহ হিসেবে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে থাকা রিমনের মরদেহ দেখাতে স্বজনদের নিয়ে যায় পুলিশ। খুনের ষোলো দিন পর শনাক্ত হন রিমন।

আরও পড়ুন: স্ত্রীর প্রেমিককে ছুরিকাঘাত করে জেলে স্বামী

সূত্র: ডিবিসি নিউজ।

ভয়েস টিভি/এসএফ
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/39781
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2021 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ