Printed on Sat Jun 19 2021 3:16:26 AM

যারা মানবতার এতো কথা বলেন, ফিলিস্তিন ইস্যুতে তারা চুপ: প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
জাতীয়
মানবতার
মানবতার
ফাইল ছবি
ফিলিস্তিনের ওপর ইসরাইলের আক্রমণকে অমানবিক উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘ইসরায়েল কর্তৃক একের পর এক হত্যাকাণ্ড হয়েছে। তারা এর আগেও হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছে। ছোট শিশুরা আহত হচ্ছে। তাদের ওপর জুলুম, তারা অত্যাচারিত, মা-বাবাহারা সত্যি দুঃখজনক। যাদের দেখি মানবতার এত কথা বলেন, কিন্তু এই সময় চুপ থাকে। আন্তর্জাতিক বহু সংস্থা এখন আর কথা বলে না। সেটাই আমার প্রশ্ন।’

২ জুন বুধবার জাতীয় সংসদে আনা শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন। সংসদ সদস্য আবদুল মতিন খসরু ও আসলামুল হক আসলামের মৃত্যুতে সংসদে আনা শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। পরে সর্বসম্মতি ক্রমে শোক প্রস্তাব সংসদ গ্রহণ করা হয়। সম্প্রতি ইসরায়েলি বাহিনীর আক্রমণে নিহত প্যালেস্টাইন নাগরিকদের জন্যও সংসদে শোক প্রকাশ করেন তিনি।

ইসরায়েলি হত্যাযজ্ঞের তীব্র নিন্দা জানিয়ে সংসদ নেতা শেখ হাসিনা বলেন, প্যালেস্টাইনে যে ঘটনা ঘটেছে, তা সত্যিই অমানবিক। সেখানকার ছোট্ট শিশুদের কান্না, তাদের অসহায়ত্ব, মাতৃ-পিতৃহারা হয়ে ঘুরে বেড়ানো সহ্য করা যায় না।

ফিলিস্তিন ইস্যুতে বাংলাদেশের অবস্থান স্পষ্ট করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘প্যালেস্টাইনের ভাইদের সঙ্গে আমরা সব সময় আছি। অতীতেও তাদের জন্য সাধ্যমতো সব রকম সহযোগিতা করেছি। এখনও করে যাচ্ছি। এই সহযোগিতা আমরা অবশ্যই করে যাবো। ইসরাইলের এই ঘৃণ্য আক্রমণের তীব্র নিন্দা জানাই।’

শোক প্রস্তাবের মধ্য দিয়ে বাজেট অধিবেশন শুরু করতে হচ্ছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নির্বাচনের সময় আমি মতিন খসরুকে বেশি ঘোরাঘুরি না করার পরামর্শ দিয়েছিলাম। কিন্তু নির্বাচনে তাকে জিততেই হবে। এজন্য সারা দেশে তিনি সফর করেন। এরপর করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন। ওই সময় প্রতিদিনই আমি তার স্বাস্থ্যের খবর নিতাম। কিন্তু দুর্ভাগ্য, তাকে বাঁচানো গেলো না।’

আসলামুল হক আসলামকে স্মরণ করে তিনি বলেন, ‘আসলামুল হক আমাদের নিবেদিত কর্মী ছিলেন। আন্দোলন-সংগ্রামে সব সময় অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন। এলাকার জন্য কাজ করেছেন। এজন্য বারবার নির্বাচিত হয়েছেন। হঠাৎ করেই তার মৃত্যুর সংবাদ পেলাম, যা খুবই দুঃখজনক।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘জীবনটাই হয়ে গেছে এমন, কে যে কখন আছে, কে যে কখন নেই, তার হিসাবই নেই। বিশেষ করে এই করোনার দ্বিতীয় ঢেউটা যখন এলো, আমরা আবারও চেষ্টা করলাম সেটাকে কোনোভাবে নিয়ন্ত্রণে আনতে। কিন্তু হঠাৎ আমাদের বর্ডার এলাকায় প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। যা হোক, আমরা সেখানে ব্যবস্থা নিচ্ছি। সবাইকে আবারও বলবো, সবাই যেন স্বাস্থ্যবিধিটা মেনে চলেন। বাংলাদেশের সব মানুষের প্রতি আমার এ আহ্বান থাকবে। টিকাদান থেকে শুরু করে সব রকম ব্যবস্থা আমরা নিচ্ছি। তারপরও নিজেদের সুরক্ষিত থাকতে হবে।’

শোক প্রস্তাবের ওপর অন্যদের মধ্যে বিরোধীদলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ কাদের, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান, রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন, বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গা, জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু, সংসদ সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ, অধ্যাপক আলী আশরাফ, একেএম রহমতউল্লাহ, সাদেক খান, মুজিবুল হক প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

ভয়েস টিভি/এসএফ
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/45844
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2021 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ