Printed on Wed May 05 2021 9:50:22 PM

যুক্তরাজ্যে আবারও লকডাউন

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক
বিশ্ব
লকডাউন
লকডাউন
টিকা দিয়েও লাগাম টানা যাচ্ছে না করোনার। এর প্রাদুর্ভাব মোকাবিলায় যুক্তরাজ্যে তৃতীয়বারের মতো লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। স্থানীয় সময় সোমবার রাতে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন এ ঘোষণা দেন। লকডাউন ঘোষণা করেছে স্কটল্যান্ডও।

বরিস জনসন বলেছেন, নতুন ধরন শনাক্তের পর করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে। এ সময় তিনি সবাইকে ঘরে থাকার আহ্বান জানান।

অক্সফোর্ডের উদ্ভাবিত করোনার টিকার অনুমোদনের পর লন্ডনের একটি হাসপাতালে তা প্রয়োগের সময় পরিদর্শন করেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি ও অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার পাশাপাশি দেশজুড়ে ফাইজার-বায়োএনটেকের ভ্যাকসিনের প্রয়োগ চলছে পুরোদমে।

তবে এরপরও লাগামহীন করোনা। বিশেষ করে নতুন ধরন শনাক্তের পর ব্রিটেনের করোনা পরিস্থিতি আরও মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। টানা প্রায় সাতদিন ধরে প্রতিদিন ৫০ হাজারের বেশি মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন। এ অবস্থায় আরও কঠোর বিধিনিষেধ আরোপের ঘোষণা দিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী।

সোমবার মধ্যরাত থেকে আগামী মধ্য ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত এ লকডাউন বলবৎ থাকবে। এর আওতায় স্কুল, কলেজ, খুব জরুরি নয় এমন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘরের বাইরে যেতে বা অবস্থান করতে পারবেন না। বিয়েতে মাত্র ছয় জন লোক ও জানাজার নামাজে ৩০ জন উপস্থিত হতে পারবেন।

মসজিদ খোলা থাকবে। তবে দুই মিটার দূরত্ব রাখা ও মাস্ক পরার বাধ্যবাধকতা পালন করতে হবে। যারা লকডাউনের নীতি ভঙ্গ করবে তাদের প্রথম দফায় ২০০ পাউণ্ড জরিমান করবে পুলিশ। পরে আবারও একই অপরাধ করলে ছয় হাজার ৪০০ পাউণ্ড জরিমানা করা হবে। বড় সমাবেশের জন্যে ১০ হাজার পাউণ্ড জরিমানা করা হতে পারে।

এদিকে করোনা মোকাবিলা ও হাসপাতালগুলোতে চাপ কমাতে ৫ জানুয়ারি মঙ্গলবার থেকেই লকডাউন ঘোষণা করেছেন স্কটল্যান্ডের ফার্স্ট মিনিস্টার নিকোলা স্টার্জন।

যুক্তরাষ্ট্র জুড়েও চলছে টিকাদান কর্মসূচি। এরমধ্যেই করোনার টিকার দ্বিতীয় ডোজও নিতে শুরু করেছেন অনেকে। এরপরও এখনো আক্রান্ত ও মৃতের দিক দিয়ে শীর্ষে অবস্থান করছে দেশটি। গেল একদিনের আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ২ লাখ মানুষ। এরমধ্যে সবচেয়ে নাজুক অবস্থা ক্যালিফোর্নিয়ার। একদিনেই রেকর্ড ২১ হাজারের বেশি করোনা আক্রান্ত রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। হাসপাতালগুলোতে পার্কিংয়ের জন্য দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করতে হচ্ছে অ্যাম্বুলেন্সগুলোকে।

যুক্তরাষ্ট্রের পরপরই অবস্থান করছে ভারত ও ব্রাজিল। পাশাপাশি ইউরোপের করোনা পরিস্থিতিরও তেমন কোনো উন্নতি নেই। রাশিয়া ও ফ্রান্স, স্পেনের পাশাপাশি গোটা বিশ্বেই আশঙ্কাজনকহারে বেড়ে চলেছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা।

ভয়েস টিভি/এমএইচ
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/30940
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2021 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ