Printed on Wed Oct 20 2021 7:11:15 AM

রাজবাড়ীতে ধরা পড়ল ১০ মণ ওজনের শাপলা পাতা মাছ

রাজবাড়ী প্রতিনিধি
সারাদেশ
শাপলা পাতা মাছ
শাপলা পাতা মাছ
রাজবাড়ীর পদ্মা নদীতে জেলের জালে ধরা পড়েছে ১০ মণ ওজনের একটি শাপলা পাতা মাছ। ২৯ আগস্ট রোববার ভোর ৭টার দিকে জেলার গোয়ালন্দ উপজেলার পদ্মা-যমুনা নদীর মোহনায় দৌলতদিয়ার ৭ নং ফেরিঘাট এলাকায় স্থানীয় জেলে বাবু সরদারের জালে মাছটি ধরা পড়ে।

বিশালকৃতির এই মাছটি দেখার জন্য ভিড় জমান উৎসুক জনতা। প্রায় ১৫ বছর আগে রাজবাড়ীতে পদ্মা নদীতে একটি শাপলা পাতা মাছ ধরা পড়েছিল বলে জানান স্থানীয় জেলেরা।

মাছটি একটি ভ্যানে করে বিক্রির জন্য দৌলতদিয়া ট্রাক টার্মিনাল সংলগ্ন একতা মৎস্য আড়তে নিয়ে আসলে সেখানে ভিড় জমে যায়। পরে মৎস্য আড়তের আড়তদার রেজাউলের আড়তে মাছটি বিক্রির জন্য তুললে রাজবাড়ীর মাছ ব্যবসায়ী কুটি মন্ডল ৮ হাজার টাকা মণ দরে ৮০ হাজার টাকা দিয়ে মাছটি কিনে নেন।

একতা মৎস্য আড়তের মালিক রেজাউল ইসলাম (রাজ) বলেন, পদ্মা নদীতে প্রায় ১৫ বছর পূর্বে একবার শাপলা পাতা মাছ পাওয়া গিয়েছিল। এটি সাধারণত মাটি ছুঁই ছুঁই করে পথ চলে। যে কারণে সহজে জালে ধরা পড়ে না। হয়তো পদ্মার তীব্র স্রোতের কারণে মাটি থেকে ওপরের দিকে এসেছে। যে কারণে জেলের জালে এটি ধরা পড়েছে।

বাবু সরদার বলেন, আমরা সাধারণত ট্রলারে পদ্মায় বড় মাছ ধরতে যাই। কট সুতার জালে বড় মাছ ধরা পড়ে। কিন্তু হঠাৎ করে বিরল প্রজাতির এই মাছটি ধরা পড়ে। মাছটি দেখে আমরা অনেক খুশি হয়েছি। জালে আটকানোর পরে মাছটি বেশি লাফালাফি করেনি। দ্রুত সময়ের মধ্যে মাছটি ডাঙ্গায় তুলতে সক্ষম হই আমরা।

আড়তদার কুটি মন্ডল বলেন, মাছটি বিলুপ্ত প্রজাতির। খেতে অনেক সুস্বাদু। যখন খবর পাই দৌলতদিয়াতে মাছটি ধরা পড়েছে তখন আমি ৮ হাজার টাকা মণ দরে ৮০ হাজার টাকাই মাছটি কিনি। এখন মাছটি লাভে বিক্রি করব।

স্থানীয় জেলে খির মোহন বিশ্বাস বলেন, মাছটির বয়স ৩০ থেকে ৪০ বছর হবে। এটা সামুদ্রিক মাছ। ভেসে নদীতে চলে এসেছে। এই মাছ এর আগেও আমি দুটো কেটেছি। খেতে অনেক সুস্বাদু।

গোয়ালন্দ উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. রেজাউল শরীফ বলেন, শাপলা পাতা একটি সামুদ্রিক মাছ। এই অঞ্চলের মানুষের কাছে বেশি পরিচিত না থাকায় এর চাহিদা কম। তবে সমুদ্রবেষ্টিত অঞ্চলের মানুষের কাছে খুবই সুস্বাদু ও জনপ্রিয় একটি মাছ এটি। তারপরও ‘শাপলা পাতা’ মাছ ধরা পড়ায় এই অঞ্চলের মানুষের জন্য এটি সুখবর।

জানা গেছে, বিরল প্রজাতির এই সামুদ্রিক মাছটিকে স্থানীয়ভাবে হাঙ্গস মাছ বলা হলেও এর নাম রে ফিন ফিস বা স্টিং ফিস। অঞ্চলভেদে এই মাছটিকে শাপলাপাতা, পানপাতে, ঢাউস ও শাকুশ নামেও ডাকা হয়। মাছটি ১২ থেকে ১৩ প্রজাতির হয়ে থাকে। এটি মানবদেহের জন্য রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে। এতে প্রোটিন, ফ্যাট, ভিটামিন এবং মিনারেল থাকায় মাছটির ব্যাপক চাহিদা রয়েছে এবং খেতেও খুব সুস্বাদু।

আরও পড়ুন : দেড় মণ ওজনের অজগর উদ্ধার

ভয়েস টিভি/এএন
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/52675
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2021 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ