Printed on Mon Jan 25 2021 11:13:25 AM

বিশের বিষে দিকহারা শিক্ষা

নিজস্ব প্রতিবেদক
শিক্ষাঙ্গনজাতীয়
শিক্ষা
শিক্ষা
১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ থেকে ২০২০ সাল, পেরিয়ে গেছে প্রায় অর্ধশত বছর। সেবার যুদ্ধ আর এবার করোনা মহামারির কারণে শিক্ষার্থীদের বিনা পরীক্ষায় পরের ক্লাসে উত্তীর্ণ করা হয়েছে।

স্বাধীনতা যুদ্ধে অস্ত্র হাতে লড়েছিল এদেশের দামাল ছেলেরা। শত্রুমুক্ত করেছিল দেশ। আমরা পেয়েছি লাল সবুজের পতাকা, স্বাধীন ভূখণ্ড। কিন্তু এবারের শত্রু অদৃশ্য। আর বিস্তৃত পৃথিবীব্যাপী। এমন শত্রুর বিরুদ্ধে এবারের লড়াইয়ে এখনও কূলকিনারা করে উঠেতে পারেনি অনেক দেশ। সে সাথে বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থা ছিলো অনেকটা দিকহারা।

মহামারিতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটি চলছে মধ্য মার্চ থেকে। বাতিল হয়েছে কয়েকটি পাবলিক পরীক্ষা। তবে সংসদ টেলিভিশন, বেতার, কমিউনিটি রেডিওর পাশাপাশি ভার্চুয়ালি যতটুকু শিক্ষা কার্যক্রম চালানো গেছে, তাতে আত্মতুষ্টির কিছু দেখছেন না শিক্ষাবিদরা।

তারা বলছেন, শুধু কোভিড-১৯ মহামারির সময় নয়, পরে দুর্যোগের যে কোনো সময় যাতে শিক্ষা কার্যক্রম চালু রাখা যায়, নতুন শিক্ষাক্রমে তা অন্তর্ভুক্ত করে সেভাবে অবকাঠামোগত প্রস্তুতি নিতে হবে।

বাংলাদেশে করোনাভাইসের প্রকোপ বাড়তে শুরু করলে গত ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হয়। কওমি মাদরাসা বাদে অন্য সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ১৬ জানুয়ারি পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা করা আছে।

৩১ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জানিয়েছেন, করোনা পরিস্থিতি অনুকূলে না এলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা হবে না। তবে অনলাইনে শিক্ষাদান কার্যক্রম চলবে।

মহামারি পরিস্থিতির ততোটা উন্নতি না হওয়ায় এ বছর পঞ্চম ও অষ্টমের সমাপনী পরীক্ষা এবং প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্কুলের বার্ষিক পরীক্ষা নেয়া যায়নি। নতুন বছরে আগের রোল নিয়েই নতুন ক্লাস শুরু করবে শিক্ষার্থীরা।

উচ্চ মাধ্যমিকেও এবার চূড়ান্ত পরীক্ষা নেয়া যায়নি; এইচএসসি ও সমমানের ফল ঘোষণা করা হবে শিক্ষার্থীদের অষ্টমের সমাপনী এবং এসএসসি ও সমমানের ফলফলের ভিত্তিতে।

আর অনলাইনে ক্লাস চললেও পরীক্ষা বন্ধ থাকায় উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো দীর্ঘমেয়াদী সেশনজটের মুখে পড়তে যাচ্ছে এবার।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা অনুষদের অধ্যাপক এম ওয়াহিদুজ্জামান মনে করেন, করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে দেশের অর্থনৈতিক খাতকে চাঙ্গা রাখার চ্যালেঞ্জ যতটা ভালোভাবে সামলানো গেছে, সেই তুলনায় শিক্ষা খাতে ততটা পারা যায়নি। এখানে ফিলোসোফিটা মানুষের জীবন আগে, তারপর শিক্ষা।

আরও পড়ুন- উজ্জীবিত আলাভেসে পর্যুদস্ত রিয়াল

অধ্যাপক ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, তারপরেও আমরা ভার্চুয়াল সিস্টেমে শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে রেখেছি। কিন্তু এখানে লিমিটেশনটা হল ডিজিটাল বাংলাদেশ অনেক দূর এগিয়েছি, কিন্তু কোথা থেকে এগিয়েছি? আমরা ছিলাম অনেক অনেক পেছনে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ অনেক জায়গায় যোগ্য নেতৃত্ব নেই। মহামারিতে উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো ভূমিকা আছে? অনলাইন এডুকেশন, অনলাইন ডিগ্রি এগুলো আমরা করতে পারিনি।

জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের সদস্য অধ্যাপক মো. মশিউজ্জামান বলেন, আগামী বছরের শুরু থেকে যদি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা সম্ভব না হয়, তাহলে তিন মাসের কোর্সের ওপর অ্যাসাইনমেন্টভিত্তিক কার্যক্রম চালু রাখতে চান তারা।

আগামী ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ‘হয়ত খোলা সম্ভব হবে না’ জানিয়ে তিনি বলেন, সেক্ষেত্রে অ্যাসাইনমেন্ট দিয়ে শিক্ষার্থীদের অ্যাটাচমেন্টে রাখা হবে, আমরা মার্চ পর্যন্ত একটি পরিকল্পনা তৈরি করছি। আশা করছি মার্চের পরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা যাবে। এরপরেও যদি খোলা না যায় তাহলে হয়ত আরও তিন মাসের জন্য অ্যাসাইনমেন্টভিত্তিক কার্যক্রমে যাওয়া হবে।

এ বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মাহবুব হোসেন বলেন, ‘করোনা পরিস্থিতির মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে ক্লাস কার্যক্রম চালিয়ে নেয়া একটি বড় চ্যালেঞ্জ ছিল। এ চ্যালেঞ্জে আমরা অনেকটা সফল হয়েছি। টিভি ও ভার্চুয়াল মাধ্যমে অসমাপ্ত সিলেবাস শেষ করা হয়েছে। এতে আমাদের ৯০ শতাংশ শিক্ষার্থী যুক্ত হয়েছে। তাদের পঠন জ্ঞান যাচাইয়ে ১৮টি অ্যাসাইনমেন্ট করানো হয়েছে। ৯৮ শতাংশ শিক্ষার্থী তা নিজ নিজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে জমা দিয়েছে। যারা এ কার্যক্রম থেকে বঞ্চিত হয়েছে তাদের বিশেষভাবে এগিয়ে নেয়া হবে।’

জানতে চাইলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদরাসা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘কারিগরি-মাদরাসা শিক্ষার প্রতি শিক্ষার্থীদের আগ্রহ বাড়ছে। এ শিক্ষাকে আধুনিক ও যুগোপযোগী করে তোলা হচ্ছে। কারিগরি শিক্ষার সঙ্গে বড় ট্রেডগুলোকে যুক্ত করা হচ্ছে। এতে চাকরিদাতাদের যুক্ত করা হচ্ছে। এর সুফল আমাদের শিক্ষার্থীরা পাবে। বিশ্বের সঙ্গে সমন্বয় করে কারিগরি শিক্ষার মান বাড়ানো হচ্ছে।

ভয়েস টিভি/এসএফ
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/30376
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2021 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ