Printed on Sun Jun 20 2021 4:10:34 AM

নদীতেও মিলত সোনা!

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক
বিশ্ব
সোনা
সোনা
খাবার খেয়ে নদীতে বাসন ধুতে গিয়েছিলেন এক সৈনিক। তখনই চোখ আটকে যায় নদীর পানিতে সোনালী রঙের চকচকে ধাতুর দিকে। মুহূর্তে খবর ছড়িয়ে পড়ে নদীর পানিতে সোনা রয়েছে। বিশেষজ্ঞ দল এসে হাজির হন সেই এলাকায়। শুরু হয় পরীক্ষা।

খবরটা একেবারেই ভুল ছিল না। সত্যিই সোনার সন্ধান মেলে ওই পানিতে। পর দিন থেকেই সোনার খনি হিসাবে চিহ্নিত হয় ওই অঞ্চল। এরপর শুরু হয় সোনা উত্তোলন। কিন্তু সেই খনি আজ পুরোপুরি পরিত্যক্ত। কাঁটাতারের বেড়ার ওপারে আজও ভাঙাচোরা কিছু যন্ত্রপাতি এবং ধ্বংসাবশেষ ছাড়া আর কিছুই চোখে পড়বে না।

খনিকে কেন্দ্র করে একসময়ে সোনার মতোই চকমকিয়ে উঠেছিল ওই এলাকা। সোনার খনি পরিত্যক্ত হওয়ায় ক্রমশ এই এলাকাও তার জৌলুস হারিয়েছে। আজ শুধুই সোনার ইতিহাস বুকে নিয়ে রয়ে গেছে এলাকাটি।

১৮৬১ সাল থেকে আমেরিকায় গৃহযুদ্ধ শুরু হয়। এই সময় ওয়াশিংটনের কাছে মেরিল্যান্ড নামে একটি অঞ্চলে ঘাঁটি গেড়েছিল আমেরিকার সেনা। পাশেই ছিল ক্যালিফোর্নিয়ার গ্রেট ফলস। ওই ঘাঁটিরই এক সেনা সেখানে বাসন ধুতে গিয়ে প্রথম সোনার মতো চকচকে বস্তুটি দেখতে পান।

তারপরই সেখানে মেরিল্যান্ড মাইন কোম্পানি গঠন হয়। বিস্তর পরীক্ষা নিরীক্ষার পর প্রথম সোনা উত্তোলন শুরু হয় ১৮৬৭ সালে। ১৯৩৯ সাল পর্যন্ত টানা সোনা উত্তোলন করে ওই সংস্থা। কিন্তু তার পরই ওই সংস্থা বন্ধ হয়ে যায়। সংস্থার মূল্যবান সরঞ্জামও ক্রমশ হয় ক্ষয়প্রাপ্ত হয়ে গেছে কিংবা চুরি হয়ে গেছে।

তবে এই এলাকায় এখনও সোনার সন্ধান পাওয়া যেতে পারে বলে মনে করেন অনেকেই। জানা যায়, এই অঞ্চলে খুব বেশি সোনা উত্তোলন হত না। ১৮৬৭ সাল থেকে ১৯৩৯ সাল পর্যন্ত মাত্র ১৯০ কেজি সোনা উত্তোলন করতে পেরেছিল সংস্থাটি।

ভয়েস টিভি/এসএফ
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/38261
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2021 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ