Printed on Thu Dec 02 2021 9:12:31 AM

অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট নিয়ে ঝুঁকিতে বাংলাদেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক
বিশ্ব
অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট
অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট
ঢাকা: লেবাননে ভয়ানক বিস্ফোরণের পর দেশে অ্যামোনিয়াম নাইট্রেটের মতো বিপজ্জনক রাসায়নিক পদার্থ আমদানি ও গুদামজাত নিয়ে ঝুঁকিতে বাংলাদেশ। এর অন্যতম কারণ দেশে বিপজ্জনক এসব রাসায়নিক পদার্থ আমদানি ও গুদামজাত করা হচ্ছে কীনা তা তদারকি করার জন্য কর্মকর্তা রয়েছেন মাত্র পাঁচ জন।

লেবাননের রাজধানী বৈরুতের বিস্ফোরণের পরপরই বাংলাদেশে এর ঝুঁকি সম্পর্কে সতর্ক করেছে বিস্ফোরক পরিদপ্তর। বিস্ফোরক পরিদপ্তরের প্রধান মো. মঞ্জুরুল হাফিজ জানান, বৈরুতের ঘটনার পর সারা দেশে বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক, স্থল, নৌ ও বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়ে পরামর্শ দেয়া হয়েছে অ্যামোনিয়াম নাইট্রেটের মতো নিয়ন্ত্রিত পদার্থ আমদানি হলে তা যেন অতিদ্রুত বন্দর এলাকা থেকে সরিয়ে ফেলা হয়।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, এই রাসায়নিক গুদামজাত করার জন্য দেশের বন্দরগুলোতে কোন নিরাপদ ব্যবস্থাও নেই। সেই সাথে ছাড়পত্র পাওয়া আমদানির বাইরে স্থানীয়ভাবে অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট উৎপাদন করা হচ্ছে কীনা, কিংবা সেগুলো নিরাপদভাবে বিক্রি, পরিবহণ কিংবা গুদামজাত করা হচ্ছে কীনা, সে সম্পর্কে কর্মকর্তারা কোন তথ্য দিতে পারেনি।

বাংলাদেশ সরকারের বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের বিস্ফোরক পরিদপ্তরের দায়িত্ব হচ্ছে এধরনের দাহ্য পদার্থের আমদানির অনুমতি দেয়া এবং নিরাপদভাবে এগুলো সংরক্ষিত হচ্ছে কিনা তা দেখা। কিন্তু অপ্রতুল জনবলের কারণে দায়িত্বপালনে অনেকটা হিমশিম খেতে হচ্ছে।

২০১৯ সালে ঢাকার চকবাজরের চুড়হাট্টায় রাসায়নিকের গুদাম থেকে আগুন লাগে। পরে বিস্ফোরক পরিদপ্তর থেকে জানা গেছে, ঢাকায় দুজন এবং চট্টগ্রাম, খুলনা এবং রাজশাহীতে একজন করে বিস্ফোরক পরিদর্শক কাজ করছেন। এসব জায়গায় দু-একজন করে সহকারী পরিদর্শকও রয়েছেন।

এদিকে আরও জানা গেছে, অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট’র গুদামের স্থানও অনেক সময় গোপন রাখা হয়। তার কারণ ১৯৭০-এর দশক থেকে ঘরে তৈরি বোমা বা হাতবোমা তৈরির উপাদান হিসেবে এটা ব্যবহৃত হয়ে আসছে। সন্ত্রাসবাদীদের মধ্যে অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট তাই বেশ জনপ্রিয়।

উল্লেখ্য, লেবাননের রাজধানী বৈরুতের নৌ-বন্দরের কাছে অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট গুদামে ভয়ানক বিস্ফোরণের পর বিশ্বজুড়ে এই দাহ্য পদার্থের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগ তৈরি হয়েছে। বিস্ফোরণে মারা গেছে ২০০ জনেরও বেশি মানুষ। নিহতের তালিকায় আছে অন্তত চার বাংলাদেশি। পাশাপাশি ওই ঘটনায় বাংলাদেশ নৌবাহিনীর অন্তত ২১জন সদস্য আহত হন এবং নৌবাহিনীর একটি জাহাজ ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

ভয়েস টিভি/ নিজস্ব প্রতিবেদক/ টিআর
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/9793
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2021 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ