Printed on Sat Jul 02 2022 8:17:21 AM

কীভাবে এল পটেটো চিপস

লাইফস্টাইল ডেস্ক
ভিডিও সংবাদলাইফস্টাইল
পটেটো চিপস
পটেটো চিপস
পরিবার কিংবা বন্ধুদের সঙ্গে বাস বা ট্রেন ভ্রমণের সময় পটেটো চিপস রাখেন না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া ভার। সারা বিশ্বেই ভালো লাগার এক অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে উঠেছে পটোটো চিপস। পাতলা টুকরো করে আলু কেটে, তেলে তাড়াতাড়ি ভেজে তাতে লবণ ও আনুষঙ্গিক মশলা দিয়ে সুস্বাদু করে তুললেই তা হয়ে উঠে চিপস। মজার বিষয় হল, এই খাদ্যের প্রকৃত উদ্ভাবক কে, তা আজও অজানাই রয়ে গেছে। এর ইতিহাস নিয়েও রয়েছে বিতর্ক।

লোককাহিনী অনুযায়ী, ১৮৫৩ সালে যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কের সারাতোগা কাউন্টিতে ‘মুনস লেক হাউস’ নামে একটি রেস্তোঁরায় প্রথম চিপসের আবিস্কার। ২৪ আগস্ট রাতে সেই রেস্তোরাঁয় এক খদ্দেরের জন্য জর্জ ক্রাম নামে রেস্তোরাঁটির এক রাঁধুনি ফ্রাইড পটেটো তৈরি করছিলেন। মুনস লেক হাউজের ফ্রাইড পটেটো ছিল বেশ জনপ্রিয়।

ক্রাম খাবার তৈরি করে পরিবেশন করলে সেই কাস্টমার ক্রামকে ডেকে অভিযোগ করেন, আলুগুলোর আকার বেশ বড় রয়ে গেছে তাই খাবারটি আবারও তৈরির অনুরোধ করেন। ক্রাম আলুগুলো পাতলা এবং ছোট করার চেষ্টা করেন। কিন্তু এবারও আলুর পুরুত্ব খদ্দেরের পছন্দমতো হয়নি। তাই তিনি খাবারটি আবারও ফিরিয়ে দেন।

বিখ্যাত রেস্তোরাঁয় কোনো রাঁধুনিকে পরপর দুইবার খাবার মনমত হয়নি অভিযোগ করলে কার মেজাজ ঠিক থাকে- ক্রামও পারেননি মেজাজ ঠিক রাখতে। ক্রাম ভাবলেন- তার তৈরি করা খাবারকে অবমাননার চেষ্টা করা হচ্ছে।

তিনি রাগের বহিঃপ্রকাশ ঘটান রান্নার মাধ্যমে। কাগজের মতো পাতলা করে কেটে ফেলেন আলুগুলোকে, ফেলে দেন তেলভর্তি কড়াইয়ে। ভাজতে থাকেন আলুগুলো শক্ত এবং মচমচে হয়ে ওঠা পর্যন্ত। তারপর আলুগুলোর উপর বেশি করে লবণ ছিটিয়ে দেন। এবার ব্যাটার শিক্ষা হবে। খেতে চেয়েছিল ফ্রাইড পটোটো, এবার তাকে খেতে হবে আলুর এক অখাদ্য।

অখাদ্য আইটেমটি পরিবেশন করা হলে সেই খদ্দের একের পর এক মুখে পুরে খাওয়া শেষ করে ফেললেন মুহূর্তেই। খাওয়ার পর তিনি রায় দিলেন- এটি ছিল বেশ সুস্বাদু। তারপর থেকে সেই রেস্তোরাঁয় নিয়মিত আইটেমটি তৈরি হতো, পরে আইটেমটি ‘সারাতোগা চিপস’ নামে পরিচিতি পায়।

মুনস লেক হাউজে ক্রামের সঙ্গে রাঁধুনি ছিলেন তারই বোন ক্যাথরিন আন্ট কেট উইক। মজার ব্যাপার হল, ১৯২৪ সালে সারাতোগা স্প্রিংয়ের স্থানীয় পত্রিকা দৈনিক সারাতোগিয়ানের এক প্রতিবেদনে উইককে পটেটো চিপসের জনক দাবী করা হয়। বলা হয়, উইকই হচ্ছেন সারাতোগা চিপসের প্রথম উদ্ভাবক।

উইক তার জীবদ্দশায় বিভিন্ন সাময়িকীতে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলেন, তিনি আলু পাতলা করে কেটে রেখেছিলেন এবং দুর্ঘটনাবশত সেগুলো গরম ফ্রাইং প্যানে পড়ে যায়। তিনি তার ভাই ক্রামকে সেটির স্বাদ নিতে দেন এবং তার থেকে ইতিবাচক সাড়া পাওয়ার প্রেক্ষিতে চিপসগুলো পরিবেশনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

উদ্ভাবক যে-ই হোক, সারাতোগা চিপসের স্বাদ নিতে দূরদূরান্ত থেকে আসা মানুষের নিয়মিত ভীড় লেগেই থাকত মুনস লেক হাউজে। কেউ কেউ দশ মাইল দূর থেকেই ছুটে আসতেন। রেস্তোরাঁর মালিক ক্যারি মুনও চিপসের জনপ্রিয়তা দেখে এর জনক হিসেবে নিজেকে জাহিরের চেষ্টা করতেন। চিপসের আবিষ্কার নিয়ে বিতর্ক থাকলেও একটা ব্যাপারে সকলেই একমত যে, ক্রামই পটেটো চিপসকে প্রথম জনপ্রিয় করে তোলেন।

১৮৯৫ সালে উইলিয়াম ট্যাপেনডন নামে একজন যুক্তরাষ্ট্রের ওহাইও অঙ্গরাজ্যের ক্লিভল্যান্ডে নিজের কিচেনে পটেটো চিপস বানানো শুরু করেন। সেগুলো তার আশেপাশের প্রতিবেশীদের কাছে এবং পরবর্তীতে মুদি দোকানেও বিক্রি করতেন। ১৯২০ এর আগপর্যন্ত ক্রামের উদ্ভাবিত চিপস স্থানীয় পর্যায়েই পরিচিত ছিল।

১৯২১ সালে বিল এবং স্যালি উর্টজ নামে এক দম্পতি পটেটো চিপসের ব্যবসা শুরু করেন। হ্যানোভার হোম ব্রান্ড পটেটো চিপস নামে তাদের কোম্পানির নাম অল্প সময়েই ছড়িয়ে পড়ে আশেপাশে। নাম পরিবর্তন করে কোম্পানিটি এখনও ব্যবসা করছে উর্টজ কোয়ালিটি ফুড নামে।

১৯২০ এর কাছাকাছি সময়ে ক্যালিফোর্নিয়ার উদ্যোক্তা লারা স্কুডার মোম কাগজের ব্যাগে পটেটো চিপস বিক্রি শুরু করেন যা চিপসকে সতেজ এবং মচমচে রাখত। সময়ের সাথে সাথে উদ্ভাবনী প্যাকেজিং পদ্ধতিতে ১৯২৬ সালে প্রথমবারের মতো চিপসের ব্যাপক উৎপাদন ও বাজারজাতকরণের দ্বার উন্মোচিত হয়।

১৯৫৪ সালে আইরিশ ব্যবসায়ী জয় স্টুড মারফি ‘টাইটো’ নামে একটি কোম্পানি চালু করেন। চিপসে মজাদার স্বাদ বাড়াতে তারা লবণ, মশলা যোগ করে প্রথমবার দুটি ফ্লেভার তৈরি করে- চিজ ও ওনিয়ন এবং সল্ট ও ভিনেগার। ফলে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসে পটেটো চিপস শিল্পে। অন্য চিপস কোম্পানিগুলোও চিপসে ভিন্ন স্বাদ আনতে উদ্যোগী হয়।

১৯৬৫ সালে প্রথম বারবিকিউ চিকেন ফ্লেভারের চিপস উৎপাদন করে লে’স কোম্পানী। এভাবেই পটেটো চিপস শিল্প এগিয়ে গিয়েছে। প্রতিযোগিতার বাজারে টিকে থাকতে কোম্পানিগুলো একের পর এক নিত্যনতুন রং, আকার এবং স্বাদের চিপস বাজারে এনেছে এবং আনছে এখনও।

ভয়েসটিভি/এএস
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/56371
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2022 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ