Printed on Wed Dec 01 2021 3:23:42 PM

কেক এর সাতকাহন

এম এস নাঈম
লাইফস্টাইল
কেক এর সাতকাহন
কেক এর সাতকাহন
‘কেক’ ছোট বাচ্চা, বয়স্ক বা বৃদ্ধ ব্যক্তি- সবার কাছেই বেশ সুস্বাদু খাবার হিসেবে পরিচিত।

ভ্যানিলা, চকলেট, স্ট্রবেরি, ব্ল্যাক ফরেস্ট, রেড ভেলভেট, বানানাসহ আরও অনেক ফ্লেভারের কেক দিয়ে ভরা থাকে কেকের দোকানগুলো।

মিষ্টি জাতীয় এই খাবারটি থেকে বিরত থাকা যে কারো জন্যই বেশ কষ্টকর।

ইতিহাস বলছে, এখনকার কেক এবং প্রাচীন যুগের কেকের মধ্যে খুব একটা মিল নেই। আগের দিনের কেকগুলো ছিল পাউরুটির মতো। আর কেককে মিষ্টি করতে উপরে মধু ছড়িয়ে দেওয়া হতো। আরও আকর্ষণীয় এবং সুস্বাদু করতে বাদাম এবং ড্রাই ফ্রুটসও দেওয়া হতো।

খাদ্য গবেষকরা জানান, প্রাচীন মিশরীয়রা পৃথিবীতে প্রথমবার কেক বানানোর কৌশল আবিষ্কার করেন। ‘কেক’ শব্দটি প্রথম ব্যবহার হয় ১৩ শতকে। প্রাচীন নর্স শব্দ কাকা থেকে ‘কেক’ শব্দের উৎপত্তি। মধ্যযুগীয় ইউরোপবাসীও কেক তৈরি করতে পারতো।

১৭ শতকের মাঝামাঝি প্রথমবার আধুনিক কেক তৈরি করে ইউরোপ। আধুনিক কেক বলতে গোলাকার কেকগুলোকে বোঝানো হয়। ইউরোপের প্রযুক্তিগত উন্নতির ফলে ওভেন ও কেক বানানোর জন্য বিভিন্ন আকৃতির ছাঁচ পাওয়া যেত। তাছাড়া বিভিন্ন খাদ্য উপাদানও তখন সহজলভ্য হয়, যার ফলে কেক তৈরির কাজটি সহজ হয়ে যায়।

১৯ শতকের মাঝামাঝি সময়ে কেকের মান আজকের পর্যায়ে আসে। এই সময়ে ময়দা এবং ইস্টের বদলে বেকিং পাউডার ব্যবহার হয় কেক এ। ২০ শতকের প্রথম দশকে কেকে প্রচলিত বয়েলড আইসিংয়ের বদলে আমেরিকান বাটার ক্রিম ফ্রস্টিং প্রয়োগ করা হত। এই ফ্রস্টিং তৈরি করা হত বাটার, ক্রিম, চিনির মিহি গুড়া এবং বিভিন্ন ফুড ফ্লেভার দিয়ে।

প্রাচীন কেকগুলো বানানো হতো হাত দিয়ে। সাধারণত রুটি তৈরির সময় আটা কিংবা ময়দার বল বানানোর মতই তা বানিয়ে বেলন দিয়ে একটু বেলে বা হাত দিয়ে টিপে তাওয়া কিংবা পাতলা কোনো প্যানে বসানো হত। গোলাকার তাওয়াতে কেকের সবগুলো পাশ ঠিকমত সেঁকা যেত। ফলে সে সময়ে গোলাকার কেক তৈরিরই প্রচলন ছিল।
১৭ শতকে গোলাকৃতির ছাঁচ ব্যবহার করা শুরু হয়। সময়ের সাথে সাথে প্রযুক্তির উন্নতি ঘটলে ধীরে ধীরে বিভিন্ন আকারের ছাঁচ বাজারে আসতে শুরু করে। যা সাধারণ মানুষের কাছে কেকের নতুন চিত্র তুলে ধরে।

প্রাচীনকাল থেকেই বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠানে কেক ব্যবহার করা হত। এখনও জন্মদিন, বিয়ে কিংবা বিশেষ কোনো দিনে কেক পরিবেশন করা হয়। একসময় চিনির মিহি গুঁড়ো, মসলা, বাদাম এবং ড্রাই ফ্রুটস দামি ছিল, তখন কাউকে বিশেষ সম্মান প্রদর্শন করা হত কেক পরিবেশনের মাধ্যমে। বর্তমানে এর মূল্য অনেক বেশি না হলেও এর পেছনের উদ্দেশ্য একই রয়ে গেছে।

ভয়েস টিভি/আইএ
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/57491
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2021 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ