Printed on Wed May 25 2022 7:53:51 PM

প্রভাবশালী ভিলেন ছিলেন নাসির খান

বিনোদন ডেস্ক
বিনোদনভিডিও সংবাদ
প্রভাবশালী
প্রভাবশালী
‘মামা বলতো ভাগ্নে বেশি লোভ করিসনে, আমার দয়া আছে কিন্তু মায়া নাই, কথা কম কাজ বেশি মানুষকে আমি বড় ভালোবাসি, আমার দুঃখ আছে কিন্তু কষ্ট নাই, মুরব্বিরা যা বলে বুদ্ধিমানরা সে মত চলে’ বাংলা সিনেমার এই সংলাপগুলোর সঙ্গে যার নাম জড়িয়ে রয়েছে তিনি ঢালিউডের জনপ্রিয় খলনায়ক নাসির খান।

পর্দায় সংলাপগুলো তুলে ধরা নাসির খান প্রয়াত হলেও সংলাপগুলো এখনো মানুষের মুখে মুখে শোনা যায়। বাংলা চলচ্চিত্রের অন্যতম সেরা ছবি বলা হয় বেদের মেয়ে জোসনাকে। ওই ছবিতে অভিনয় করে ভিলেন নাসির খান কেড়ে নেন বাংলা সিনেমাপ্রেমিদের মন।

১৯৫৯ সালের ১৭ই সেপ্টেম্বর পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ার বেতমোর রাজপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন নাসির খান। তার জন্ম নেওয়া জায়গাটিকে এলাকাবাসী সম্মান করে নামকরণ করেছেন ‘নাসির খানের গলি' নামে। নাসির খান জগন্নাথ কলেজ থেকে হিসাববিজ্ঞানে এম কম পড়েন। ছিলেন জগন্নাথ কলেজের ছাত্র সংসদের কার্যনির্বাহী সদস্য। মঞ্চে কাজ করে পরে চলচ্চিত্রে আসেন। মঞ্চাভিনয়ের ফলেই চলচ্চিত্রে অভিনয়ে খুব একটা বেগ পেতে হয়নি।
বাংলা সিনেমায় খলনায়কদের কথা বললে নাসির খানের নামটি আসবেই- তিনি বেশিরভাগই মূল খলনায়কের সহকারী হিসেবে কাজ করেছেন। ‘হাঙর নদী গ্রেনেড’ ছবিতে মূল খলনায়কের অভিনয় করেছেন- এ ছবিতে নাসির খান স্বাধীনতাবিরোধী রাজাকারের চরিত্রে অভিনয় ছিলেন। গ্রামের মানুষ তাঁর ভয়ে তটস্থ থাকত। সুচরিতার মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের ধরিয়ে দেয়ার জন্য উঠেপড়ে লাগে। বাণিজ্যিক ছবির সুপরিচিত অভিনেতা নাসির খান অনেক ছবি করার পরেও আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে আসেন নি। তাঁকে নিয়ে লেখালেখি হয় নি খুব একটা। অনেক কিংবদন্তিদের ভিড়ে তিনি হারিয়ে গিয়েও নিজের বর্ণিল ক্যারিয়ারের মাধ্যমে উজ্জ্বল হয়ে আছেন।

নাসির খান অভিনীত প্রথম ছবি ‘চোর’ মুক্তি পায় ১৯৮৫ সালে। এরপর ২৭ বছরের অভিনয় জীবনে ৫ শতাধিক ছবিতে কাজ করেছেন। তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য সিনেমাগুলোর মধ্যে বেদের মেয়ে জোৎস্না, দেন মোহর, মায়ের অধিকার, স্বপ্নের নায়ক, অন্তরে অন্তরে, বিক্ষোভ, এই ঘর এই সংসার, পাগল মন, ভন্ড, আলিফ লায়লা, সুপারম্যান, রূপসী রাজকন্যা, রবিনহুড, হাঙর নদী গ্রেনেড, ভালোবাসার ঘর, যোদ্ধা, পালাবি কোথায়, সাক্ষী প্রমাণ, লঙ্কাকান্ড, জোর, মুন্না মাস্তান, অনুতপ্ত, জামাই শ্বশুর, ভাইয়া, যত প্রেম তত জ্বালা, বোমা হামলা, বিগবস, দাপট, উল্টাপাল্টা ৬৯, মিলন, লাল দরিয়া ইত্যাদি।

নাসির খান বেশ কিছু শিশুতোষ চলচিত্রে অভিনয় করে শিশুদের কাছেও ছিলেন জনপ্রিয়। এছাড়া দর্শকরা নাসির খানকে ভালোবেসে বাংলাদেশ ব্যাংকের পাশের গলির নামকরণ করেন 'নাসির খানের গলি' নামে। স্ত্রী এবং তিন কন্যাসহ তিনি এখানে থাকতেন বলেই গলিটির এই নাম।

নাসির খান হুমায়ুন ফরীদি, রাজিব, এটিএম শামসুজ্জামান, আহমেদ শরীফ-দের মতো বাঘা বাঘা খলনায়কদের ছবিতেও নিজের চরিত্র ফুটিয়ে তুলতে পারতেন। অক্লান্ত পরিশ্রম করেই গড়েছেন নিজের বর্ণিল ক্যারিয়ার। মা, তিন কন্যা, স্ত্রী ও অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে ২০০৭ সালের ১২ জানুয়ারী মাত্র ৪৭ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করেন প্রখ্যাত এই অভিনেতা।

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির কার্যনির্বাহী সদস্য পদে সর্বাধিক ভোটে নির্বাচিত নাসির খানের অভিনয়ে ভেরিয়েশন কম থাকলেও স্বতঃস্ফূর্ততা ছিল প্রশংসনীয়। বেশিরভাগ ডায়লগ ডেলিভারি দিতেন একইভাবে। ভরাট কণ্ঠের জন্য দর্শকরা তাকে সবসময় স্মরণ করবে।

ভয়েসটিভি/এএস
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/68585
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2022 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ