Printed on Sun Oct 24 2021 12:01:40 PM

বায়ান্নো বাজার তেপ্পান্নো গলি

নিজস্ব প্রতিবেদক
জাতীয়ভিডিও সংবাদ
বায়ান্নো বাজার
বায়ান্নো বাজার
পুরান ঢাকা বাঙালির এক অতুলনীয় ঐতিহ্য। বলতেই হবে বাঙালির শেকড়টা কিন্তু সেই পুরান ঢাকাতেই। ‘ঢাকা’ নামের যেমন চমকপ্রদ তত্ত্ব আছে, ঢাকা অথবা তৎকালীন ঢাকা গড়ে ওঠা এলাকাগুলোর নামও বেশ ভারি চমৎকার। এলাকার নামগুলো জানলেই, ইতিহাসের প্রাথমিক অধ্যায় জেনে যাওয়া যায়।

একসময় ঢাকা শহরকে বলা হতো ‌‘বায়ান্নো বাজার তেপ্পান্নো গলি’। সময়ের সাথে সাথে বেড়েছে গলি ও বাজারের সংখ্যা। তাই এইসব এলাকার ইতিবৃত্ত খুঁজে বের করা কৌতূহলোদ্দীপক ও রোমাঞ্চকর একটা ব্যাপার।

প্রচুর গলি, বাজার থাকায় এর নামকরণ করেছিলো হয়তো কেউ। শুধু বাজার নয়, এখানে আছে অনেকগুলো 'পুর', 'গঞ্জ', 'তলা', 'তলী' এবং বাহারি নামের এলাকা। এলাকার নামকরণের পেছনে লুকিয়ে আছে একটির চেয়ে একটি রোমাঞ্চকর ঘটনা। ৪০০ বছরের ইতিহাসে পুরান ঢাকার রাস্তাগুলো যেন একেকটা গল্প।

একেকটি রাস্তা তার নিজের পরিচয় দেয় নামে, স্থাপত্যে, প্রকৃতি-পরিবেশে। প্রত্যেকটি এলাকার নামের সাথে জড়িয়ে আছে অজানা অনেক স্মৃতি। তাদের নিজস্ব কিছু বলার যেমন আছে; আছে অস্তিত্বও। চলুন দেখে আসি এলাকাগুলোর গোড়াপত্তনের কাহিনী।

১. ইস্কাটন:- ইস্কাটন শব্দটি “স্কটল্যান্ড” এর একটি বিকৃত সংস্করণ। ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির সময়কালে একটি গির্জা কিছু স্কটিশ প্রচারক দ্বারা সেখানে প্রতিষ্ঠিত হয়। এই নামের উৎপত্তি সেখান থেকেই।

২. ওয়ারী:- ১৮৮৪ সালে, ঢাকা নগরীর ম্যাজিস্ট্রেট ছিলেন ওয়্যার নামের এক ব্যক্তি। তার নামানুসারেই তখনকার ঢাকার উপকণ্ঠ এলাকাটি পরিচিত হয়েছিলো ওয়ারী নামে। ঢাকাইয়্যাদের কাছে ওয়ারীই পুরান ঢাকার রাজধানী। সেসময় ওয়ারী খুবই পরিকল্পিতভাবে গড়ে উঠেছিল। তাই এর রাস্তাগুলো সুন্দর, পরিষ্কার এবং প্রশস্ত।

৩. গেন্ডারিয়া:- ঢাকার জৌলুশ পৃথিবীর সবাইকেই আকর্ষন করতো। এক ইংরেজ পর্যটক ঘোড়ায় চড়ে ঢাকার আসেন। বর্তমানে গেন্ডারিয়া এলাকায় গিয়ে বলে ওঠেন, ‘হোয়াট অ্যা গ্রান্ড এরিয়া!’। সেই থেকে এলাকাবাসী এই আবাসিক এলাকার নাম দেন ‘গেন্ডারিয়া’।

৪. বেচারাম দেউরী:- বেচারামের নামটি তালিকাভুক্ত করা হয় ১৭৯০ সালে। তিনি কী করতেন, এ সম্পর্কে ঠিক জানা যায় নি। তবে ধারণা করা হয়, তিনি একজন প্রভাবশালী ব্যবসায়ী ছিলেন, নয়তো একজন পিতল কর্মী ছিলেন। এখানে বেশ কিছু নান্দনিক জমিদার বাড়ি এবং পুরনো স্থাপত্য আছে, এজন্য এলাকাটিতে প্রচুর পর্যটক দেখা যায়।

৫. সেগুনবাগিচা:- একসময় ঢাকা নগরে রাশি রাশি গাছ ছিল। এইসব গাছের মধ্যে প্রচুর সেগুন গাছও ছিলো। আজকের সেগুন বাগিচা যে এলাকাটি। সেখানে ছিল হাজারো সেগুনগাছ। তাই এলাকাটির নাম হয়ে যায় সেগুনবাগিচা বা সেগুন বাগান।

পুরাণ ঢাকার অলিগলির দোকানে চোখে পড়বে বিভিন্ন সব স্বাদের খাবার। পুরাণ ঢাকার বিখ্যাত সব খাবারের মধ্যে “হাজী বিরিয়ানি” বেচারাম দেউরী “নান্না বিরিয়ানী” উল্লেখ। মুঘল আমল থেকেই সুনাম কুড়িয়েছে পুরান ঢাকার ঘি ও সরিষার তেলে তৈরি বিরিয়ানি। গ্রিল কয়েকবছর ধরে জনপ্রিয় হলেও কাবাব সেই পুরাণ ঢাকার ঐতিহ্যবাহী খাবার।

মোঘলদের পত্তনের পর ব্রিটিশ লর্ডেরা পুরান ঢাকার বেশকিছু সংস্কার করায় ব্রিটিশ শাসনকাল পর্যন্ত এই শহরের শ্রী কিছুটা বিদ্যমান ছিলো। কিন্তু আধুনিকায়নের যাতাকলে পিস্ট হয়ে সেই প্রাচীন অভিজাত এবং ছিমছাম ঢাকা শহর অনেকটাই হারিয়ে ফেলেছে তার পূর্বের প্রাচীন সৌন্দর্য।

ভয়েসটিভি/এএস
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/53850
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2021 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ