Printed on Mon Jan 24 2022 5:24:03 PM

বিখ্যাত সব চাইনিজ সিনেমা

বিনোদন ডেস্ক
বিনোদনভিডিও সংবাদ
বিখ্যাত
বিখ্যাত
বর্তমান সময়ে বাণিজ্যিক সিনেমার প্রায় পুরোটাই দখল করে রেখেছে অ্যাকশন সিনেমা। হলিউড থেকে শুরু করে সারা বিশ্বের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি-তেই এখন অ্যাকশন সিনেমার বাজিমাত। চমৎকার থ্রিল, অ্যাকশন আর গ্রাফিক্স সব মিলিয়ে প্রতি মুহূর্তে রোমাঞ্চকর কিছু দেখার জন্যে অ্যাকশন সিনেমার তুলনা নেই। তবে অ্যাকশন সিনেমা ক্ষেত্রে চাইনিজ ইন্ডাস্ট্রির বেশ সুনাম রয়েছে। চাইনিজ অ্যাকশন মুভির কথা হলেই মার্শাল আর্টের কথা সবার আগে ভাবনায় আসে আর চায়না মার্শাল আর্টের জন্য বিখ্যাত।

১. ইপ ম্যান :
ইপ ম্যান সিরিজের সিনেমা দেখেন নি এমন সিনেমা লাভার পাওয়া দুষ্কর। এই সিনেমাগুলো সব বয়সী মানুষের সমান প্রিয়। ইপ ম্যান কিন্তু বাস্তবেও ছিলেন। অ্যাকশনে ভরপুর তার এই রঙিন জীবনই সিনেমার মাধ্যমে উঠে এসেছে। এই সিনেমা সববয়সী মানুষকে মুগ্ধ করেছে।

২. রেড ক্লিফ :
রেড ক্লিফ সিনেমাটি একটি যুদ্ধকে ঘিরে নির্মিত। একে একটি সিনেমা না বলে দুইটি সিনেমা বলা যায়। কেন না, এই সিনেমাটির সময়কাল চার ঘন্টা আটচল্লিশ মিনিট। যুদ্ধের প্রস্তুতি থেকে ফলাফল, রণকৌশল, বন্ধুত্ব, ভালোবাসা সবকিছু আছে এই সিনেমায়। অনেক লম্বা সময় ধরে এই সিনেমাটি দেখতে হলেও একমুহূর্ত বিরক্ত হবার সুযোগ নেই। সিনেমাটি চাইনিজ অ্যাকশন সিনেমার মাঝে সেরা বললেও ভুল হবে না। কুং ফু হ্যাসেল দেখে হাসির সিনেমা বলে ভ্রম হবে। কমেডি ঘরানার অ্যাকশনধর্মী এই সিনেমার বাড়িওয়ালা মহিলাটির চরিত্র হাসতে বাধ্য করে দর্শকদের। কমেডি আর অ্যাকশনের এক অপূর্ব সংমিশ্রণ সিনেমাটিকে অন্যান্য সিনেমা থেকে আলাদা করেছে। অসাধারণ এই সিনেমাটি দর্শকদের মন এক নিমেষে ভালো করে দিতে সক্ষম।

৩. দ্য গ্রেট ওয়াল :
চায়নার বিখ্যাত প্রাচীরের কথা কারো অজানা নয়। যুগে যুগে চায়নাকে অসংখ্য বিপদ থেকে এই প্রাচীর রক্ষা করেছে। এই সিনেমায় দেখানো হয়েছে এই প্রাচীর টপকে ভয়াবহ এক প্রাণীর দল চায়না আক্রমণের চেষ্টা করে। প্রাণীগুলো আসলে মঙ্গোলিয়ানদের রুপক হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে সিনেমায়। অ্যাডভেঞ্চার আর অ্যাকশনের চমৎকার সংমিশ্রণ রয়েছে সিনেমাটিতে।

৪. পুলিশ স্টোরি :
বিশ্বের সবচেয়ে সমাদৃত চাইনিজ সিনেমার মাঝে প্রথমদিকেই জ্যাকি চ্যানের আরেকটি বিখ্যাত সিনেমা পুলিশ স্টোরি থাকবে। একই নামে জ্যাকি চ্যানের একটি সিরিজও আছে। এই সিরিজটি থেকেই অনুপ্রাণিত হয়ে পুলিশ স্টোরি বানানো হয়েছিলো। মূলত সিরিজিটি কমেডি-অ্যাকশন নির্ভর হলেও সিনেমায় কোন কমেডি উপাদান নেই। পুলিশ স্টোরি মূলত অভিনেতা লেজ লি চিউং-এর করার কথা থাকলেও ২০০৩ সালে তার অকালমৃত্যুর ফলে এই সিনেমাটিতে কাজ করার সুযোগ পান জ্যাকি চ্যান।

৫. অপারেশন রেড সী :
অপারেশন রেড সী সিনেমাটি ইয়েমেনের গৃহযুদ্ধের প্রেক্ষাপট নিয়ে নির্মিত। এই সিনেমায় দেখানো হয় ইয়েমেনের গৃহযুদ্ধের সময় সেখানে আটকা পড়া চাইনিজ নাগরিকদের উদ্ধারের জন্য নৌবাহিনীর এক শ্বাসরুদ্ধকর অভিযান। অ্যাকশনপ্রেমীদের জন্য একদম উপযুক্ত একটি সিনেমা। এই সিনেমাটিতে অ্যাকশনের সাথে সাথে একটা শক্তিশালী গল্প আছে যা মন ছুঁয়ে যায়।

৬. দ্য ফরবিডেন কিংডম :
জ্যাকি চ্যানকে সবাই এক নামে জানে। জ্যাকি চ্যান এবং আরেক বিখ্যাত তারকা জেট লীকে পর্দায় একসাথে দেখা যায় এই সিনেমায়। দ্য ফরবিডেন কিংডম বিখ্যাত একটি সিনেমা। পর্দায় জ্যাকি চ্যানের কমেডি আর অ্যাকশনের সংমিশ্রণ মনে এমন ছাপ ফেলে যাবে যে সিনেমাটি একবার দেখে আবারও দেখার ইচ্ছে জাগবে।

৭.ওলফ ওয়ারিয়র :
এই সিনেমাটির কাহিনী একজন দক্ষ স্নাইপারকে নিয়ে। লেং ফেইং সোয়াট দলের একজন স্নাইপার। এক মিশনে হোস্টেজকে বাঁচাতে কমান্ডারের কথা অমান্য করে অপরাধীর ওপর গুলি চালানোর ফলে কোর্ট মার্শাল হয় তার। এরপর শাস্তিস্বরুপ তাকে ওলফ ওয়ারিয়র নামক দলে পাঠিয়ে দেয়া হয়। এই দলের সদস্যরা আর্মিদের সাথে নকল গোলাবারুদ নিয়ে যুদ্ধের ট্রেনিং নেয়। যেই অপরাধীকে লেং ফেইং হত্যা করেছিলো তার বড় ভাই লেং ফেইংকে মেরে ফেলার জন্য গুণ্ডা ভাড়া করে। এই গুণ্ডাদের আক্রমণ থেকে লেং ফেই কিভাবে আত্মরক্ষা করে এটি নিয়েই সিনেমাটির গল্প।

ভয়েসটিভি/এএস
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/62865
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2022 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ