Printed on Sat Oct 16 2021 2:57:01 AM

বিয়ের পরদিন নববধূকে অপহরণ করল প্রেমিক

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি
সারাদেশ
নববধূকে
নববধূকে
কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলায় বিয়ের পরদিন এক নববধূকে অপহরণ করে একাধিকবার ধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে সাবেক প্রেমিকার বিরুদ্ধে। ২৮ জুলাই বুধবার এ ঘটনায় নববধূর মা বাদী হয়ে উলিপুর থানায় অপহরণ এবং ধর্ষণের অভিযােগ মামলা দায়ের করেছেন।

মামলার এজাহার এবং পুলিশ সূত্রে জানা যায়, কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার বেলগাছা ইউনিয়নের ছমির উদ্দিনের ছেলে সামিউল ইসলাম (৩০) প্রতিবেশির বাড়িতে যাতায়াত করত। এ সময় ওই প্রতিবেশির মেয়েকে বিভিন্ন সময় প্রেমের ও বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। একপর্যায়ে বিয়ের প্রলােভন দেখিয়ে সামিউল ইসলাম ওই মেয়ের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তােলেন। বিষয়টি মেয়ের পরিবার জানতে পেয়ে সামিউল ইসলামের পরিবারকে জানায়। এ ঘটনায় সামিউল ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন এবং ওই মেয়েকে অপহরণ করার হুমকি দেন। মেয়ের পরিবার ভয়ে দ্রুত সময়ের মধ্যে পারবারিকভাবে মেয়েকে গত ২১ জুলাই অন্যত্র বিয়ে দেয়।

বিয়ের পরের দিন ২২ জুলাই ভাের রাতে সাবেক প্রেমিক সামিউল ইসলাম বিয়ের আশ্বাস দিয়ে ওই নববধূকে শ্বশুর বাড়ি নিয়ে যায়। এ ঘটনায় নববধূর স্বামী সকালে উঠে স্ত্রীকে না পেয়ে শ্বশুর বাড়ির লােকজনকে খবর দেন। পর অনেক খােঁজা-খবরের পর ২৬ জুলাই মেয়ের পরিবারের লােকজন পঞ্চগড় জেলার বোদা থানার কাজল দিঘি এলাকার একটি বাড়িতে অপহরণকারী সামিউল ইসলামসহ ওই নববধূর সন্ধান পান। পরিবারের লােকজনকে সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করতে গেলে সামিউল ইসলাম নববধূকে রেখে পালিয়ে যান। এরপর পরিবারের লােকজন নববধূক নিয়ে আসার সময় জানতে পারেন সামিউল ইসলাম বিয়ের প্রলােভন দেখিয়ে জােরপূর্বক তাকে একাধিকবার ধর্ষণ করেছেন। এ ঘটনায় ওই নববধূর মা বাদী হয়ে ২৮ জুলাই বুধবার উলিপুর থানায় অপহরণ ও ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন।

উলিপুরের পৌর এলাকার এক বাসিন্দা বলেন, হিন্দু সম্প্রদায়ের ৪২ বছরের এক মধ্যবয়সীর সঙ্গে ১৪ বছরের মেয়ের দেয়া হয়েছে। তবে মেয়টির আগে প্রেম ছিল। মেয়েটি হিন্দু আর সাবেক প্রেমিক মুসলমান হওয়ায় তাদের মাঝে সম্পর্ক থাকলেও ছেলে এবং মেয়ের পরিবার মেনে নেয়নি। পরে মেয়েকে তাদের সম্প্রদায়ের ছেলের সঙ্গে বিয়ে দেয়া হয়।

উলিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) রুহুল আমিন নববধূকে অপহরণ ও ধর্ষণের অভিযােগে মামলা হবার কথা স্বীকার করে বলেন, নববধূকে উদ্ধার করা হয়েছে। আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

ভয়েস টিভি/এসএফ
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/49652
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2021 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ