Printed on Wed Jul 06 2022 8:19:56 PM

ফসলি জমির মাটি বিক্রি যুবলীগ নেতার, অনাবাদি বিস্তীর্ণ এলাকা

ফেনী প্রতিনিধি
সারাদেশ
মাটি
মাটি
চার বছর আগেও ফেনী সদর উপজেলার মোটবী ইউনিয়নের সাহাপুর মৌজায় ও উত্তর লক্ষ্মীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন স্থানে ৩ হাজার শতক জমিতে ধান উৎপাদন হত। একটি চক্র মাটি কেটে নেয়ায় ওই এলাকা নিচু জমিতে পরিণত হওয়ায় চাষাবাদ সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে যায়। এ ব্যাপারে জনপ্রতিনিধি, কৃষি বিভাগ কিংবা উপজেলা প্রশাসনের কোন উদ্যোগ নেই।

কৃষি বিভাগ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, সাহাপুর মৌজা ও উত্তর লক্ষ্মীপুর এলাকায় ২০১৬ সালে বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশনের (বিএডিসি) অর্থায়নে সেচ সুবিধার জন্য ভূগর্ভস্থ পানির লাইন তৈরি করা হয়। এর সুফলও পায় কৃষকরা। এর কিছুদিন পর আনোয়ার হোসেনসহ স্থানীয় একটি চক্র এস্কেভেটর দিয়ে মাটি কেটে বিক্রি করেন। এস্কেভেটর ও ট্রাক্টরের গাড়ির চাপায় পাইপ লাইন ফেটে অকেজো হয়ে পড়ে। ফলে এসব জমি অনাবাদি হয়ে পড়লেও আনোয়ার যুবলীগের জেলা কমিটির পদে থাকায় স্থানীয়দের কেউ ভয়ে মুখ খুলতে সাহস করে না। পরে বিষয়টি জেনে তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মামুন ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তখন পানির লাইন মেরামত করে দেয়ার কথা থাকলেও সেটি আর হয়নি।

স্থানীয় এক কৃষক জানান, সেখানে তার ৩ একর জমি রয়েছে। প্রতি ৩ শতকে ১ মন ধান পাওয়া যেত। জমি চাষ করতে না পেরে আর্থিকভাবে সংকটে রয়েছি।

মোটবী ইউনিয়নের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা জহিরুল ইসলাম জানান, বিএডিসি কর্তৃপক্ষকে জানানোর পর তাদের প্রতিনিধি ক্ষতিগ্রস্ত জমি পরিদর্শন করেছেন। পুনরায় সেচের ভূগর্ভস্ত লাইন নির্মাণের জন্য উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানাবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন। দীর্ঘদিন ধরে কৃষকরা ফসল উৎপাদন করতে পারছেন না।

মোটবী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হারুন অর রশিদ এল এলি বি জানান, সেচ সুবিধা দেয়া হলে বিশাল জমি আবাদের আওতায় আসবে। এতে স্থানীয় কৃষকরাও স্বনির্ভরতা ফিরে পাবে।

কৃষি উন্নয়ন প্রকল্পের মনিটরিং অফিসার আবু নঈম মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন জানান, বিষয়টি কৃষি অফিসের একার পক্ষে সমাধান সম্ভব নয়। তাই বিএডিসি কিংবা পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষের সহায়তায় দ্রুত সেচ ব্যবস্থা চালু করতে হবে।

ফেনী জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) মো. শহীদুল ইসলাম জানান, বিষয়টি জানা নেই। গত কিছুদিন ধরে ভারপ্রাপ্ত দায়িত্বে রয়েছি। খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেয়া হবে।

তিনি বলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষ মুহুরী সেচ প্রকল্পের আওতায় জেলায় ৫৭টি সেচের স্কিমের কাজ শেষ করেছে। আগামীতে বরাদ্ধ পেলে এখানেও সেচ ব্যবস্থা চালুর জন্য চিঠি দেয়া হবে।

ভয়েস টিভি/এসএফ
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/43837
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2022 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ