Printed on Sun May 22 2022 1:26:10 AM

মারিউপোলে তীব্র হচ্ছে মানবিক সংকট

নিজস্ব প্রতিবেদক
বিশ্ব
মানবিক সংকট
মানবিক সংকট
ইউক্রেনের বন্দরনগরী মারিউপোলে সপ্তাহখানেক ধরে রুশ বাহিনীর ঘেরাওয়ের মধ্যে থাকা জনগণের খাবার ফুরিয়েছে, বরফ গলিয়ে খেতে হচ্ছে পানি, হিমাঙ্কের নিচের তাপমাত্রায় শরীর উষ্ণ রাখতে জ্বালাতে হচ্ছে কাঠ, নিহত মানুষদের দেওয়া হচ্ছে গণকবর। আরও অবরুদ্ধ ইউক্রেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর খারকিভ, উত্তরাঞ্চলীয় চেরনিহিভ, দক্ষিণাঞ্চলীয় মিকোলেইভসহ বিভিন্ন শহরেও এখন অনেকটা একই সংকটে রয়েছে।

এই শহরগুলোতে প্রতিনিয়ত গোলা বর্ষণ ও বিমান থেকে ফেলা হচ্ছে বোমা। ফলে গ্যাস ও পানির সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে, পুরো শহর বা একাংশ হয়ে পড়ছে বিদ্যুৎহীন। এসব এলাকায় আটকে পড়া বেসামরিক নাগরিকদের সরিয়ে নেওয়ার জন্য সাময়িক যুদ্ধবিরতির সিদ্ধান্ত নেওয়া হলেও অনেক ক্ষেত্রে তা কার্যকর হচ্ছে না। বরং ইউক্রেন ও রাশিয়া কর্তৃপক্ষ একে অপরকে দোষারোপ করছে।

এই পরিস্থিতিতে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি রুশ হামলাকে ইউক্রেনকে নির্মূল করার যুদ্ধ হিসেবে বর্ণনা করেছেন।

বিবিসি বলছে, অনেকে ইউক্রেনের শহরগুলোর পরিস্থিতিকে সিরিয়ার সঙ্গে তুলনা করছেন। সিরিয়ায় বেশ কয়েক বছরের যুদ্ধের পর এ অবস্থা দেখা গিয়েছিল, সেখানে ইউক্রেনে রুশ হামলার মাত্র তৃতীয় সপ্তাহ চলছে।

অবরুদ্ধ শহর চেরনিহিভের অবস্থা দিন দিন খারাপ হচ্ছে। তিন লাখ বাসিন্দার এই শহরে গ্যাস, ঘর উষ্ণ রাখার ব্যবস্থা এমনকি পানি সরবরাহও বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। আঞ্চলিক গভর্নর ভিয়াচেস্লাভ চাউস গতকাল শনিবার এক ভিডিও বার্তায় বলেন, রুশ বাহিনী বেসামরিক স্থাপনায় হামলা চালাচ্ছে। তাতে নিরীহ মানুষ প্রাণ হারাচ্ছেন।

সবচেয়ে খারাপ অবস্থা দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় শহর মারিউপোলে। চার লাখের বেশি মানুষের এই শহর সপ্তাহখানেকের বেশি সময় ধরে রুশ বাহিনীর ঘেরাওয়ের মধ্যে রয়েছে। প্রকাশিত বিভিন্ন ছবি ও স্যাটেলাইট চিত্রে দেখা গেছে, অনেক আবাসিক এলাকা গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। ধ্বংস হয়েছে বিপণিবিতান। হামলা হয়েছে হাসপাতালেও। নিহত অনেক মানুষকে গণকবর দেওয়া হয়েছে।

শহর কর্তৃপক্ষের ভাষ্যমতে, এখানে দেড় হাজারের বেশি মানুষ নিহত হয়েছেন। গতকালও মারিউপোলের একটি মসজিদে হামলা হয়েছে।

মারিউপোলের ডেপুটি মেয়র সের্গেই ওরলোভ গতকাল বলেন, শহরের বাসিন্দারা খাবার ও পানির ভয়ানক রকমের সংকটে পড়েছেন। শহরে বিদ্যুৎ নেই, পানি নেই, ঘর উষ্ণ করার ব্যবস্থা নেই, পয়োনিষ্কাশনব্যবস্থাও কাজ করছে না। লোকজন বরফ গলিয়ে খেতে বাধ্য হচ্ছেন। কাঠে আগুন জ্বালিয়ে রান্না এবং বরফ শীতল তাপমাত্রায় নিজেদের উষ্ণ রাখার চেষ্টা করছেন।

ইউক্রেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর খারকিভেও মানবিক সংকট তৈরি হয়েছে। ১৪ লাখ মানুষের এই শহরও রুশ হামলায় ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ঘরবাড়ি হারিয়ে নিঃস্ব হয়েছেন বহু মানুষ। তাদের একজন আলোনা ১২ বছরের মেয়েকে নিয়ে আশ্রয় নিয়েছেন রেলের বগিতে।

তিনি আল–জাজিরাকে বলেন, ‘আমাদের বাড়ি ধ্বংস হয়ে গেছে। আমি জানি না সন্তানকে নিয়ে কোথায় যাব। আমাদের মতো বহু মানুষ সবকিছু হারিয়েছেন।’

কিয়েভের কাছে হামলা

গতকাল ছিল ইউক্রেনে রুশ হামলার ১৭তম দিন। এ দিনও বিভিন্ন শহরের বাসিন্দাদের ঘুম ভেঙেছে বিস্ফোরণের শব্দে। রাজধানী কিয়েভের দক্ষিণের ভাসিলকিভ শহরে রকেট হামলা চালিয়ে বিমানঘাঁটি গুঁড়িয়ে দিয়েছে রুশ বাহিনী। ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে কিয়েভের একটি হিমায়িত খাদ্যের গুদামঘর। কিয়েভের আশপাশের ছোট শহরগুলো ঘিরে অবস্থান নেওয়া রুশ সেনাদের সঙ্গে ইউক্রেন বাহিনীর গোলাগুলি চলছে। উত্তর-পূর্ব দিক থেকে কিয়েভের দিকে এগোতে থাকা আরেকটি রুশ সেনাবহর আরও কিছুটা অগ্রসর হয়েছে।

কিয়েভ ঘিরে লড়াই রাশিয়ার নতুন স্তালিনগ্রাদ হয়ে উঠতে পারে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ইউক্রেনের পার্লামেন্ট সদস্য স্ভিয়াতোস্ল্যাভ ইউরাহ। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলাকালে ১৯৪২-৪৩ সালে স্তালিনগ্রাদের লড়াইয়েই নাৎসি বাহিনীকে রুখে দেন রাশিয়ার সেনারা।

গতকাল ইউক্রেনের পূর্ব-মধ্যাঞ্চলীয় নিপরো, মধ্যাঞ্চলীয় ক্রোপিভিৎস্কি, দক্ষিণাঞ্চলীয় মিকোলেইভ ও নিকোলেভ শহরেও গোলা নিক্ষেপ ও বিমান হামলা হয়েছে। মিকোলেইভে একটি ক্যানসার হাসপাতালে গোলা হামলা হয়েছে।

মেয়রকে ধরে নেওয়ার অভিযোগ

রুশ সেনারা দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের মেলিতোপোল শহরের মেয়র ইভান ফেদোরোভকে ধরে নিয়ে গেছেন বলে অভিযোগ করেছে ইউক্রেন কর্তৃপক্ষ। ইউক্রেনে হামলা চালানোর কয়েক দিনের মধ্যে এই শহর দখলে নিয়েছিল রুশ বাহিনী। তাদের কাছে আত্মসমর্পণ করবেন না বলে ঘোষণা দিয়েছিলেন ফেদোরোভ। ইউক্রেনের কর্মকর্তাদের পোস্ট করা একটি ভিডিওতে দেখা গেছে, গত শুক্রবার এই মেয়রকে চোখ বেঁধে নিয়ে যাচ্ছেন রুশ সেনারা। গতকাল তাঁর মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ করেন ওই শহরের একদল বাসিন্দা।

ভয়েসটিভি/এমএম
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/69392
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2022 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ