Printed on Sat Jan 22 2022 5:32:48 PM

রানির রূপের রহস্য যে চার পানীয়

বিনোদন ডেস্ক
বিনোদনভিডিও সংবাদ
রানির
রানির
রানি মুখার্জি হাসলে নাকি মুক্তো ঝরে! এক ঢাল খোলা চুলে হাওয়া বিলি কাটলে নাকি বুকের কাছটা চিনচিন করে ওঠে পুরুষদের। এক মেয়ের মা হওয়ার পরেও রানি বলিউডের ‘পাটরানি’। ১৯৯৭ সাল থেকে আজও পর্দা কাঁপিয়েই চলেছেন তিনি। বর্তমানে রানি মুখার্জির বয়স ৪৩ বছর। তবুও তার শরীরে নেই বার্ধক্যের ছাপ।
এখনো নিয়মিত নতুন নতুন ছবির শুটিং করছেন। সম্প্রতি রানি তার নতুন ছবি ‘বান্টি অর বাবলি ২’ নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন। এই ছবির একটি গান সম্প্রতি ইউটিউবে প্রকাশ পেয়েছে। যেখানে রানির নাচ ও ফিটনেস সবারই নজর কেড়েছে।

অভিনেত্রী নিজের সম্বন্ধে নিজে কী ভাবেন? তিনি বলেন তিনি যেমন বেঁটে তেমনি জঘন্য তার গলার স্বর। গায়ের রং-ও মাজা। কোনওটাই নায়িকা-সুলভ নয়। এই কারণেই পরিচালক রাম মুখোপাধ্যায়ের মেয়ে নাকি অভিনয়েই আসতে চাননি। এবং এ সব নিয়ে দীর্ঘ দিন হীনমন্যতায়ও ভুগেছেন।

রানি বলেন, ‘‘একে বেঁটে। গায়ের রঙ মাজা। তার উপরে গলার স্বর ফ্যাঁসফেঁসে, ভাঙা। এই নিয়ে কেউ নায়িকা হতে পারে? তাই স্বপ্ন দেখলেও অভিনয়ের কথা মুখেও আনতাম না।’’ পর্দায় রেখা, শ্রীদেবী, মাধুরী দীক্ষিতকে দেখে ‘মর্দানি’ ছবির নায়িকার সেই ধারণা আরও বদ্ধমূল হয়ে গিয়েছিল। তার স্বপ্নের কথা এক মাত্র জানতেন তার মা। তিনি সব সময় মেয়েকে সাহস জোগাতেন। পরে রানির এই ভুল ধারণা ভেঙে দেন দক্ষিণী ছবির সুপারস্টার। ‘কুছ কুছ হোতা হ্যায়’ দেখে রানির এই ‘হাস্কি ভয়েজ’-এর প্রেমে পড়েছিলেন অসংখ্য পুরুষ অনুরাগী।

অন্যান্য অভিনেত্রীদের মতোই রানিও সৌন্দর্য ও ফিটনেসের বিষয়ে বেশ সচেতন। এ কারণেই ৪৩ বছরেও রানি দেখতে এখনো ৩০ এর মতোই। তবে রানির সৌন্দর্যের রহস্য কী?

রানি তার দিন শুরু করেন অ্যালোভেরার জুস দিয়ে। যা ত্বকে আর্দ্রতা ধরে রাখে ও কোমল করে। অ্যালোভেরার রস খেলে শরীরের রক্ত প্রবাহ বাড়ে। এমনকি শরীরের ক্ষতিকর উপাদানও দূর করে এই ভেষজ।

অনেকেই করল্লার নাম শুনলেই নাক সিঁটকান। তবে জানলে অবাক হবে, সুস্থ ও সুন্দর ত্বক ধরে রাখতে রানি নিয়মিত করল্লার জুসও খান। এতে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও ভিটামিন সি আছে। যা শরীরের জন্য অনেক উপকারী।

এ ছাড়াও রানি মুখার্জি নিয়মিত গ্রিন টি পান করে। যা ত্বকের জন্য খুবই উপকারী। এমনকি ডাবের পানিও দৈনিক পান করেন এই নায়িকা। ডাবের পানিতে থাকে ভিটামিন সি।

যা ত্বকের কোলাজেনকে উদ্দীপিত করে, ফলে ত্বকের সতেজতা বাড়ে। একইসেঙ্গে ত্বকের স্বাস্থ্য ভালো থাকে ও বার্ধক্য দূর করে।

অনেকেই চোখের নিচের ডার্ক সার্কেল নিয়ে বেশ চিন্তিত থাকেন। জানেন কি, রানিও এ সমস্যায় ভোগেন। যেহেতু রাত জেগে অনেক সময় তিনি শুটিং করেন, সে কারণে ঘুম কম হলে এ সমস্যা দেখা দেয়।

তবে রানি এ সমস্যার সমাধানে টোনার হিসেবে গোলাপ জল ব্যবহার করেন। ধীরে ধীরে গোলাপ জলের প্রভাবে চোখের নিচের কালো দাগ দূর হয়।

মনে রাখবেন, সুস্থ শরীর ও সুন্দর ত্বক পেতে ভেতর থেকে সুস্থ থাকা জরুরি। এজন্য পুষ্টিকর ও ভেষজ উপাদানের বিকল্প নেই।

ভয়েসটিভি/এএস
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/60017
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2022 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ