Printed on Tue Dec 07 2021 2:32:13 AM

রামের জন্মস্থান নিয়ে ভারত-নেপালের বিতর্ক

ফেরদৌস মামুন
বিশ্বভিডিও সংবাদ
রামের জন্মস্থান
রামের জন্মস্থান
এবার সনাতন ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম অবতার রামের জন্মভূমি নিয়ে চরম বিতর্ক চলছে নেপাল-ভারতের। নেপালি প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলির দাবি, রামের জন্ম ভারতে নয়, নেপালে। তিনি নেপালের রাজপুত্র ছিলেন। তার জন্মস্থান অযোধ্যাপুরীর অবস্থান নেপালেই। একারণে তিনি রামের মুর্তি তৈরিও ঘোষণা দিয়েছেন।

এদিকে ওলির এই মন্তব্যের পর ফুঁসে উঠেছে ভারত। দেশটির ক্ষমতাসীন দল বিজেপি বলছে, ভারতীয় হিন্দুদের বিশ্বাস, রামের জন্মভূমি বর্তমান উত্তর প্রদেশের অযোধ্যাতেই।

কয়েক মাধ ধরে নেপালের সাথে তীব্র টানাপোড়েন শুরু হয়েছে ভারতের। কারণ সীমান্তের বিতর্কিত ভূখণ্ড উত্তরাখণ্ডের লিপুলেখ পাস, লিম্পিয়াধুরা আর কালাপানি এলাকাকে নিজেদের দাবি করে নতুন মানচিত্র বানিয়েছে নেপাল। আর গত জুলাই মাসে এই মানচিত্র সর্বসম্মতভাবে আইনসভায় পাস করায় ওলির সরকার। হঠাৎ নেপালের এমন আচরণে প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ হলেও এ বিষয়ে কোনো কথাই বলছে না মোদি সরকার।

এদিকে ৫ আগস্ট বিশাল আয়োজনের মধ্য দিয়ে অযোধ্যায় ৫০০ বছর পুরনো বাবরি মসজিদ ভেঙ্গে সেখানেই রামমন্দির নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এই রামমন্দির নির্মাণ উপলক্ষে সেদিন গোটা ভারতের হিন্দুত্ববাদী সংগঠনগুলো উৎসবে মেতে ওঠে। তাদেরও বিশ্বাস দেবতা রামের জন্মস্থান ভারতের অযোধ্যায়।

কিন্তু ভারতের এই বিশ্বাসকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে কাঠমান্ডুতে নিজ বাসায় এক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে নেপালের প্রধানমন্ত্রী ওলি দাবি করেন, রাম একজন নেপালি। তার জন্মভুমি ভারতে নয়, নেপালের চিতওয়ানের মাদি পৌরসভা এলাকার অযোধ্যাপুরীতে। এটা কাঠমান্ডুর কাছে একটি ছোট্ট গ্রাম। সেইসাথে তিনি আরো বলেন, শুধু রাম নয়, সীতার জন্মও নেপালে।

এমন দাবির পক্ষে প্রমাণও তুলে ধরে নেপালের প্রধানমন্ত্রী। বলেন, রাম যে নেপালি মধ্যযুগীয় বাংলা সাহিত্যেও তার প্রমাণ রয়েছে। আর ভারতের অযোধ্যাও নেপালের, এটিরও প্রমাণ রয়েছে মধ্যযুগের লুইপার কাব্যে। ফলে সীমান্ত নিয়ে ভারত বেশি বাড়াবাড়ি করলে অযোধ্যাকেও নেপাল দাবি করতে পারে।

এরইমধ্যে নেপালের অযোধ্যাপুরীর আশপাশের এলাকা সংরক্ষণের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। আর রামের জন্মের প্রমাণ সংগ্রহের জন্য নির্দেশ দেন খনন কাজ শুরুর। অযোধ্যাপুরীকে ঐতিহাসিক ও ধর্মীয় স্থান হিসেবে গড়ে তুলতে সরকার ভূমি দেবে বলেও ঘোষণা দেন। এছাড়া রাম, লক্ষ্মণ ও সীতার মূর্তি স্থাপনের নির্দেশ দিয়েছেন নেপালি প্রধানমন্ত্রী।

নেপালের এসব দাবির পক্ষে দাড়িয়ে দেশটির গণমাধ্যমগুলোও বলছে, নেপালের সংস্কৃতিকে দমিয়ে জোর করে ভিন দেশি সংস্কৃতির অনুপ্রবেশ করানো হয়েছে। তাইতো রামের জন্মভূমি নিয়ে বিতর্ক উঠছে। কিন্তু প্রকৃত সত্য, কোটি কোটি হিন্দু ভগবান রামের জন্মস্থান বলে যে প্রাচীন শহর অযোধ্যাকে বিশ্বাস করেন, তা কাঠমান্ডুর কাছেই অবস্থিত।

এদিকে, নেপালি প্রধানমন্ত্রীর এসব বক্তব্যের পর সরব হয়ে ওঠে ভারতীয় গণমাধ্যমগুলো। তারা এমন বক্তব্যকে রাজনৈতিক বিভেদ তৈরি ও ভারতকে আহত করার জন্য ‘অবাক পদক্ষেপ’ বলে বর্ণনা করছে। সেইসাথে ক্ষমতাসীন ভারতীয় জনতা পার্টির মুখপাত্র বিজয় শঙ্কর শাস্ত্রী নিন্দাও জানিয়েছেন।

অন্যদিকে ভারতীয় বিশ্লেষকদের মতে, চীনের ইশারাতেই নেপাল এসব বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। তারা ভারতবিরোধী কোনো পদক্ষেপ নিলেই তাতে সমর্থন দেবে চীন। কারণ চীন চায়, ভারতকে কোণঠাসা করতে ভারতের চারপাশের দেশকে সমর্থন দেয়া। তার সাম্প্রতিক প্রমাণ নেপালেরও রামমন্দির প্রতিষ্ঠার ঘোষণা।

তাদের মতে, নেপালের রাজনীতিতে দিনদিন কোণঠাসা হয়ে পড়ছে ওলি সরকার। তাই প্রধানমন্ত্রী ওলি চান চীনের মদদে নতুন দল গড়ে তুলতে। কারণ নিজের দলে তিনি ধীরে ধীরে প্রভাব হারাচ্ছেন। তাই ক্ষমতায় টিকে থাকতে চীনের সাহায্য দরকার। ফলে অযোধ্যা ও রামমন্দির বিতর্ক এই মুহূর্তে তাঁর জন্য তুরুপের তাস।

লেখক : ফেরদৌস মামুন, সাংবাদিক
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/9683
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2021 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ