Printed on Wed May 18 2022 12:15:52 PM

সর্বস্তরে বাংলা ভাষা রাখতে উপেক্ষিত হাইকোর্টের নির্দেশনা

নিজস্ব প্রতিবেদক
জাতীয়
সর্বস্তরে বাংলা
সর্বস্তরে বাংলা
হাইকোর্টের নির্দেশনা, সুনির্দিষ্ট আইন, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষার স্বীকৃতি থাকার পরও সর্বস্তরে বাংলা ভাষা এখনও চালু করা যায়নি। সাইনবোর্ড, বিলবোর্ড, নেম প্লেট, নম্বর প্লেট, মিডিয়ায় ইংরেজি বিজ্ঞাপন ও মিশ্র ভাষা ব্যবহার ঠেকানো এখনও সম্ভব হয়নি।

সর্বস্তরে বাংলা ভাষা চালু করতে ২০১৪ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি নির্দেশনা দেয় হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ। জনস্বার্থে দায়ের করা একটি রিট আবেদনের শুনানি নিয়ে বিচারপতি কাজী রেজা-উল হক ও বিচারপতি এ বি এম আলতাফ হোসেনের তৎকালীন হাইকোর্ট বেঞ্চ আদেশ দেন। ওই আদেশে একমাসের মধ্যে গণমাধ্যমের বিজ্ঞাপন, সাইনবোর্ড এবং সব ধরনের নম্বর ও নেম প্লেটে বাংলা ভাষা ব্যবহারের নির্দেশ দেওয়া হয়।

আদালতের আদেশে, বাংলা ভাষা প্রচলন আইন বাস্তবায়নে সরকারের নিষ্ক্রিয়তা কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে রুলও জারি করেন। পাশাপাশি দেশের সকল সাইনবোর্ড, বিলবোর্ড, নেম প্লেট, নম্বর প্লেট, মিডিয়ায় ইংরেজি বিজ্ঞাপন ও মিশ্র ভাষা ব্যবহার বন্ধে পদক্ষেপ গ্রহণের নির্দেশ দেয়।

এই নির্দেশনার আগে থেকেই সর্বত্র বাংলা ব্যবহারে রয়েছে আলাদা এক আইন। ১৯৮৭ সালের বাংলা ভাষা প্রচলন আইনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের সর্বত্র তথা সরকারি অফিস, আদালত, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান বিদেশের সঙ্গে যোগাযোগের প্রয়োজন ছাড়া অন্যান্য সব ক্ষেত্রে বাংলা ব্যবহার করবে। নথি ও চিঠিপত্র, আইন-আদালতের সওয়াল জবাব এবং অন্যান্য আইনানুগ কার্যাবলী অবশ্যই বাংলায় লিখতে হবে। কর্মস্থলে বাংলা ভাষা ছাড়া অন্য ভাষা ব্যবহার হলে সরকারি কর্মচারীরা শৃঙ্খলা ও আপিল বিধি ভঙ্গে অভিযুক্ত হবেন। আর তাদের বিরুদ্ধে বিধিভঙ্গের ব্যবস্থা নেওয়া যাবে।

এই আইনটির প্রায়োগিক দুরাবস্থা দেখে ২০১৪ সালের ফেব্রুয়ারিতে হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ইউনুছ আলী আকন্দ। সেই আবেদনের প্রেক্ষিতেই পুরনো আইন অনুযায়ী সর্বত্র বাংলা ভাষা প্রয়োগের নির্দেশনা দেয় হাইকোর্ট। মন্ত্রিপরিষদ সচিব, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সচিব, আইন মন্ত্রণালয় সচিব ও সংস্কৃতিক মন্ত্রণালয় সচিবকে এ আদেশ বাস্তবায়নের অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়।

এরপর বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে একাধিকবার হাইকোর্টে প্রতিবেদন দাখিল করা হয়। কিন্তু মাঠপর্যায়ে ওই আদেশ বাস্তবায়নের দৃশ্যমান কোনও অগ্রগতি হয়নি বলে অভিযোগ করেছেন রিটকারী আইনজীবী।

আইনজীবী ইউনুছ আলী আকন্দ বলেন, ‘সুনির্দিষ্ট আইন ও হাইকোর্টের অন্তর্বর্তীকালীন নির্দেশনা সত্ত্বেও কেউ তা মেনে চলছেনা। সর্বত্র বাংলা ভাষার ব্যবহার উপেক্ষিত। এজন্য আমি একটি আদালত অবমাননার মামলাও করেছিলাম। সে মামলাটি এখনও পেন্ডিং। একইসঙ্গে মূল রিট মামলার রুল শুনানিও পেন্ডিং রয়েছে। শারীরিক উপস্থিতিতে পুরোপুরিভাবে আদালত খুলে গেলে সেসব মামলার শুনানি শেষ করার চেষ্টা করবো।’

ভয়েসটিভি/এমএম
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/67424
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2022 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ