Printed on Wed May 18 2022 1:42:20 PM

বিমানবন্দরে স্ক্যানার নষ্ট, যুক্তরাজ্যে বাজার হারাচ্ছে ব্যবসায়ীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক
জাতীয়
স্ক্যানার নষ্ট
স্ক্যানার নষ্ট
পূর্ব লন্ডনের নিউ স্পিটালফিল্ডস মার্কেটে শনিবার ১৯ মার্চ থেকে দেশীয় সবজি পাচ্ছেন না প্রবাসী বাঙালিরা। সাধারনত এমন হওয়ার কথা নয়, তাই দেখে অবাক হলেন তারা।

এ বিষয়ে মার্কেটের আনিকা ফ্রুটস অ্যান্ড ভেজিটেবলের স্বত্তাধিকারী আতিকুর রহমান বলেন, ‘গত দুই সপ্তাহ সময় ধরে বাংলাদেশের কোনো সবজি পাচ্ছি না। এ কারণে এখানকার বাজারে দেশি সবজি একেবারেই নেই’।

সবজি না আসার কারণ কি জানতে চাইলে উত্তরে তিনি বলেন, ‘রপ্তানিকারকরা বলছে, বাংলাদেশ শাহজালাল এয়ারপোর্টে স্ক্যানার নষ্ট হয়ে গেছে। একটি মাত্র স্ক্যানার দিয়ে কীভাবে চলে একটা দেশের এয়ারপোর্টের কার্যক্রম?’

লন্ডনে সবজির বাজারের সবচেয়ে বড় এই পাইকারি মার্কেটের অন্যতম ব্যবসায়ী আতিক বলেন, গত দুই সপ্তাহে আমি একাই আনুমানিক ২০ হাজার পাউন্ডের অর্ডার হাতছাড়া করেছি। এটা একটা বড় লস।’

মেরিডিয়ান ইউকে লিমিটেডের মালিক সোহেল আহমেদ বলেন, ‘বাংলাদেশের অনেক সবজি যুক্তরাজ্যে আগে থেকেই এমনিতে নিষিদ্ধ। তার মধ্যে যাও কিছু সবজি আসে সেটাও দুই সপ্তাহ ধরে বন্ধ রয়েছে।

তিনি দেখাচ্ছেন তার নিজ দোকানে বাংলাদেশে থেকে আসা কলার থোর, কচুমুখী, লাউ, সুপারী, তালের এক একটি বক্স। ছুটির দিনের আগের রাত তথা শনিবার রাতে প্রত্যেক সবজির অন্তত ৪০/৫০টি বক্স থাকে।

এই মার্কেট থেকে প্রতিদিন যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন বাংলাদেশির দোকানে এসব সবজি যায়। এখন সব জায়গায় একই অবস্থা বিরাজ করছে। ফলে দেশি সবজির কিনতে পারছেন না প্রবাসী বাংলাদেশিরা।

বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা বলেন, তাদের দোকানে বছরে ১০ কোটি পাউন্ডের কৃষিপণ্য তথা সবজির চাহিদা রয়েছে। তার মধ্যে মাত্র সোয়া ৩ কোটি পাউন্ডের পণ্য পাঠান দেশীয় ব্যবসায়ীরা। আর তুরস্ক, আফ্রিকা বা পূর্ব ইউরোপের দেশগুলোতে সবজির বাজার বাড়ানো গেলে ৫০০ মিলিয়ন পাউন্ডে দাঁড়াবে বাজার।

ব্রিটিশ বাংলাদেশি ভেজিটেবল ইমপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি রফিক হায়দার বলেন, যুক্তরাজ্যের বাজারে এই মুহূর্তে বাংলাদেশি সবজি অনিয়মিত হয়ে গেছে। একদিন এলে কয়েকদিন আসে না। ফলে এখানে ক্রমাগত বাজার হারাচ্ছে বাংলাদেশের সবজি ও কৃষিপণ্য।

স্ক্যানার সমস্যার কারণে ব্যবসায় ক্ষতি হওয়ার ফলে ক্ষুব্ধ দেশি রপ্তানিকারকরাও। তারা এখন নিজেদের মধ্যে বাজার হারানোর শঙ্কায় রয়েছেন।

ঢাকার কৃষিপণ্য রপ্তানিকারক উত্তম কুমার বলেন, শাহজালাল বিমানবন্দরের স্ক্যানিং মেশিন নষ্ট রয়েছে। যার কারণে যুক্তরাজ্যে ১০ দিনের মতো সবজি রপ্তানি বন্ধ আছে।

তিনি বলেন, গত ছয় মাসের মধ্যে বন্দরের স্ক্যানিং মেশিন নষ্ট হওয়ার এটা তৃতীয় ঘটনা।

উত্তম বলেন, ‘এভাবে রপ্তানি বাধাগ্রস্ত হওয়ার ফলে বাজার হারাচ্ছি আমরা। ফলে আমাদের ছেড়ে অন্য দেশের সরবরাহকারীদের সঙ্গে ব্যবসা করেছেন ইউরোপের ব্যবসায়ীরা’।

ব্যবসায়ী মনসুর আহমেদ বলেন, ‘থেমে থেমে তো আমরা পচনশীল খাদ্যপণ্যের ব্যবসা করতে পারি না। যুক্তরাজ্যে মানুষরা না খেয়ে তো আমাদের পণ্যের জন্য বসে থাকবে না।

মনসুর বলেন, ‘বাজারে শ্রীলঙ্কা, থাইল্যান্ড, ভারত, মালয়েশিয়ার পণ্য ঢুকে পড়বে। ওইসব দেশের সবজি ব্যবসায়ীর একবার ওই সব বাজারে ঢুকে পড়লে আমরা কি তাদের হটিয়ে দিতে পারব? এসব কারণে ইউকেতে আমাদের পানের বাজারটা নষ্ট হয়ে গেছে।’

বিএফভিএপিইএ সাধারণ সম্পাদক মনসুর আহমেদ, ‘স্ক্যানার ভালো থাকলে প্রতিদিন ১০/১২ টন মাল রপ্তানি হত। সিভিল এভিয়েশন প্রতি কেজি পণ্য স্ক্যানিংয়ের পর ৬ সেন্ট করে নেন। এর এক সপ্তাহের টাকা দিয়ে এরকম চারটা স্ক্যানার কিনতে পাওয়া যায়। কিন্তু সিভিল এভিয়েশন এ ব্যাপারে কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করছে না। একটা মাত্র মেশিন তাও এক বছর ধরে পুরোই নষ্ট। আরেকটা যাও আছে তা আবার কয়েকদিন পরপর খালি নষ্ট হয়ে যায়।’

বিমানবন্দরের নির্বাহী পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন এ এইচ এম তৌহিদ-উল আহসান জানিয়েছেন, স্ক্যানার ঠিক করার পর যুক্তরাজ্যে কৃষিপণ্য পাঠাতে দুই সপ্তাহের মতো সময় লাগবে।

বিমানবন্দরের কর্মকর্তারা জানান, যুক্তরাজ্যের পরিবহন দপ্তর (ডিপার্টমেন্ট অব ট্রান্সপোর্ট) অনুমোদিত ওই ইডিএস (এক্সপ্লোসিভ ডিটেকশন স্ক্যানার) মেশিনের যন্ত্রাংশ আমাদের দেশে পাওয়া যায় না।

এ অবস্থায় যুক্তরাজ্যে পণ্য পাঠানো এখন সম্ভব হচ্ছে না তবে ইউরোপের অন্যান্য দেশে পণ্য পাঠানোতে কোনো সমস্যা হচ্ছে না বলে জানান তৌহিদ আহসান।

ভয়েসটিভি/এমএম
যোগাযোগঃ
ভয়েস টিভি ৮০/৩, ভিআইপি রোড, খান টাওয়ার, কাকরাইল,
ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ
ফোনঃ +৮৮ ০২ ৯৩৩৮৫৩০
https://bn.voicetv.tv/news/70514
© স্বত্ব ভয়েস টিভি 2022 — ভয়েস টিভি
শাপলা মিডিয়ার একটি প্রতিষ্ঠান
সর্বশেষ সংবাদ